HIV আক্রান্ত হওয়ায় ভিটেমাটি ছাড়া বেহালার দম্পতি

স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: ছোঁয়াচে রোগ নয় এইচআইভি। এই বিষয়ে সচেতনতা গড়ে তুলতে অনেক প্রচার করা হয়েছে। খরচও কিছু কম হয়নি। তবুও হুঁশ ফেরেনি সমাজের। এখনও সমাজের কাছে বিশাল বড় ট্যাবু হয়েছে রয়েছে এইচআইভি সম্পর্কে সঠিক ধারণা।

কেবলমাত্র এইচআইভি আক্রান্ত বলে ঘর জুটছে না এক দম্পতির। ছবিটা পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী শহর কলকাতার শহরতলি এলাকার। ৩৫ বছরের যুবক তাঁর ২৭ বছর বয়সী স্ত্রীকে নিয়ে সম্মুখীন হয়েছেন প্রবল প্রতিকূলতার। এই সমস্যা চলে আসছে গত সাত বছর ধরে। এই মুহূর্তে তাদের প্রধান চিন্তা মাত্র দুই বছর বয়সী মেয়েকে নিয়ে। ওই দম্পতির কথায়, “আমাদের মেয়েটাকেও আমাদের জন্য এমন নিয়মিত গঞ্জনা শুনতে হবে না তো!”

এই দম্পতির সমস্যা শুরু হয় সাত বছর আগে। সেই সময় তাঁরা দক্ষিণ কলকাতার বেহালায় থাকতেন। নিজের পুর্বপুরুষের ভিটেতেই স্ত্রীকে নিয়ে ছিল ওই ব্যক্তির সংসার। কিন্তু বিপত্তি ঘটল এইচআইভি-র বিষয়ে টি প্রকাশ্যে আশার পর। স্থানীয়রা তাঁদের তাড়িয়ে দিল এলাকা থেকে। কারণ ওই দম্পতি এইচআইভি ভাইরাসের শিকার। ব্যক্তিগত বিষয় বলে এড়িয়ে গিয়েছিল পুলিশ।

- Advertisement -

বেহালা থেকে দূরে কোথাও গিয়ে তাঁরা নতুন করে ঘোর বাঁধার স্বপ্ন দেখেন। এরপরে কলকাতার উত্তর শহরতলিতে এসে থাকার কথা ভাবেন ওই দম্পতি। ঘর ভাড়া করেন আগরপাড়ায়। সেখানেও ঘটল একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। বাড়িওয়ায়ালের নির্দেশে খালি করতে হল ভাড়া নেওয়া ঘর। শুধু তাই নয়, ঘর ছাড়তে রাজি না হওয়ায় জুটল বাড়িওয়ালার প্রহার। খড়দহ থানা এবং স্থানীয় কাউন্সিলরকে বলেও কোনও কাজ হয়নি। দুই পক্ষই ঘর ছেড়ে যাওয়ার পক্ষেই কথা বলেছিল বলে জানালেন ওই আক্রান্ত ব্যক্তি।

এই মূহুর্তে তাঁরা সোদপুরের একটি বাড়িতে ঘর ভাড়া নিয়ে থাকছেন। কিন্তু সবসময় কাজ করছে একটা ভয়, “রোগের কথা জানলে আবার তাড়িয়ে দেবে না তো!”

Advertisement ---
-----