প্রকাশ জমানার অবসান ঘটিয়ে সিপিএমের গলায় ‘জয় সীতারাম’!

বিশাখাপত্তনম: জয় সীতারাম!
লাল নামাবলি গায়ে কমিউনিস্টদের সূর জোরাল হল রামনাম৷ বিশাখাপত্তনমের অলিগলিতে এখন এই একটাই নাম৷ হবে নাই বা কেন! শনিবার সিপিএমের পলিটব্যুরোর প্রধান পদে আসীন হলেন তিনি, তাঁর জয়গান হবেই৷ ২১ তম পার্টি কংগ্রেসে প্রকাশ কারাতের স্থলাভিষিক্ত হলেন ৬২ বছরের সীতারাম ইয়েচুরি৷ তবে উল্লেখজনকভাবে পলিটব্যুরো থেকে বাদ পড়লেন পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য।

Edited by- Swastika Chowdhury
Edited by- Swastika Chowdhury

শুরু থেকেই এবারের পার্টি কংগ্রেসে আলোচনার মূল বিষয় ছিল, একগুয়েমিতা ছেড়ে তরুণ প্রজন্মকে পার্টির নেতৃত্বে নিয়ে আসা৷ সীতারাম ইয়েচুরি না এস রামচন্দ্রন পিল্লাই? সিপিএমের পরবর্তী সাধারণ সম্পাদক কে হবেন তা নিয়ে জল্পনা ছিল তুঙ্গে৷
সূত্রের খবর, প্রবীণ সিপিএম নেতা ভি এস অচ্যুতানন্দন প্রকাশ্যে ইয়েচুরিকে সমর্থন জানালেও, শেষ পর্যন্ত কার নামে সিলমোহর পড়বে, তা অনেকাংশেই নির্ভর করছিল কেরল পলিটব্যুরোর সদস্যদের ভোট কার দিকে যাচ্ছে, তার উপর। কারণ, ১৯৬৪  সাল থেকে সিপিএমের ইতিহাসে সম্পাদক নির্বাচন নিয়ে এভাবে আড়াআড়ি বিভাজন আগে কখনও হয়নি৷ প্রতিবারে পার্টি কংগ্রেসের অনেক আগে থেকেই নয়া সম্পাদক কে হবেন, তার ইঙ্গিত মিলতে থাকে৷ ঠিক এভাবেই পি সুন্দরাই থেকে প্রকাশ কারাত, সকলেই সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন৷ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচন নিয়ে বিদায়ী পলিটব্যুরো ও নয়া কেন্দ্রীয় কমিটিতে ভোটাভুটির নজির এই প্রথম৷ এই প্রথম কারাত শিবিরের বিরোধিতা করে ভোটাভুটির লড়াইয়ে নেমে নির্বাচিত হলেন সীতারাম ইয়েচুরি৷ যদিও কারাত শিবির থেকে আরএস পিল্লাই এবং কখনও বা বিভি রাঘাভুলুকে সামনে রাখা হয়েছিল৷ যদিও পার্টি কংগ্রেসের প্রকাশ্য সভায় ভাষণ দেওয়ার তালিকায় নেই আরএসপি-র নাম৷ সমঝোতা সূত্রে নয়া সম্পাদক হওয়ার দৌড়ে ছিলেন বৃন্দা কারাতও৷ তবে, সব জল্পনা উড়িয়ে সকলকে হারিয়ে সিপিআই(এম)-এর সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হলেন চেন্নাইয়ের ব্রাক্ষ্মণ পরিবারের সন্তান সীতারাম ইয়েচুরি৷

buddhodebঅসুস্থতার কারণে পশ্চিমবঙ্গের পক্ষ থেকে সরে দাঁড়লেন নিরুপম সেন ও বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য৷ তাঁরা সরে গেলেন না সরিয়ে দেওয়া হল, তা নিয়েও জল্পনা তুঙ্গে৷ পার্টির একাং মনে, পার্টি-দুর্গ পশ্চিমবঙ্গে দলের শোচনীয় অবস্থার জন্য অনেকাংশেই দায়ী বুদ্ধ-নিরুপমের শিল্পনীতি৷ এটা রাজ্যের গ্রামেগঞ্জে পার্টি ক্যাডারদেরও বিশ্বাস৷ফলে, সম্ভবত এই কারণের এই দুই নেতাক পলিটব্যুরো থেকে ছেঁটে ফেলা হল৷

- Advertisement -

২১ তম পার্টি কংগ্রেসে নতুন মুখ সহ মোট ৯১ জন মনোনীত হলেন৷ কেন্দ্রীয় কমিটি তৈরি হল ১৬ জন সদস্যকে নিয়ে৷ কমিটিতে রয়েছেন, প্রকাশ কারাত, রামচন্দ্র পিল্লাই, পিনারাই বিজয়ন, বিভি রাঘাভুলু, কোডিয়ারি বালাকৃষ্ণণ, এম এ বেবি, জি রামাকৃষ্ণণ, একে পদ্মনাভম প্রমুখ৷ এতদিন পলিট ব্যুরোর প্রথম ও একমাত্র মহিলা সদস্য ছিলেন বৃন্দা কারাত৷ এবারের কংগ্রেসে মহিলা সদস্য হিসেবে নয়া মুখ সুভাষিণী আলি৷ এদিকে, অসুস্থতার কারণে পশ্চিমবঙ্গের পক্ষ থেকে সরে দাঁড়লেন নিরুপম সেন ও বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য৷ তাঁরা সরে গেলেন না সরিয়ে দেওয়া হল, তা নিয়েও জল্পনা তুঙ্গে৷ পার্টির একাং মনে, পার্টি-দুর্গ পশ্চিমবঙ্গে দলের শোচনীয় অবস্থার জন্য অনেকাংশেই দায়ী বুদ্ধ-নিরুপমের শিল্পনীতি৷ এটা রাজ্যের গ্রামেগঞ্জে পার্টি ক্যাডারদেরও বিশ্বাস৷ফলে, সম্ভবত এই কারণের এই দুই নেতাক পলিটব্যুরো থেকে ছেঁটে ফেলা হল৷ পরিবর্তে স্থান পেলেন দুই সংখ্যালঘু নেতা মহম্মদ সেলিম ও হান্নান মোল্লা৷ এমনকী, রামচন্দ্র ডোম, অঞ্জু কর, শ্রীদীপ ভট্টাচার্য এবং মিনতি ঘোষও নয়া কমিটিতে স্থান দখল করেছেন। তবে কেন্দ্রীয় কমিটির আমন্ত্রিত সদস্য হিসেবে থেকে যাচ্ছেন বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, নিরুপম সেন এবং ভি এস অচ্যুতানন্দন।

prakash-karat১৬ জনের  কেন্দ্রীয় কমিটিতে রয়েছেন, প্রকাশ কারাত, রামচন্দ্র পিল্লাই, পিনারাই বিজয়ন, বিভি রাঘাভুলু, কোডিয়ারি বালাকৃষ্ণণ, এম এ বেবি, জি রামাকৃষ্ণণ, একে পদ্মনাভম প্রমুখ৷ এতদিন পলিট ব্যুরোর প্রথম ও একমাত্র মহিলা সদস্য ছিলেন বৃন্দা কারাত৷ এবারের কংগ্রেসে মহিলা সদস্য হিসেবে নয়া মুখ সুভাষিণী আলি৷

আজ, বরিবার বিকেলে বিশাখাপত্তনমের রামকৃষ্ণ বিচে জনসভায় বক্তব্য রাখবেন প্রকাশ কারাত, সীতারাম ইয়েচুরি, বৃন্দা কারাত ও মানিক সরকার। দক্ষিণী ধাঁচে দলের নয়া সম্পাদককে হুডখোলা লাল জিপে চাপিয়ে সমর্থকদের কুর্ণিশ কুড়ানোর মধ্য দিয়ে সমাবেশে নিয়ে যাওয়া হবে সীতারামকে৷ পোর্ট স্টেডিয়ামে লাল টুকটুকে রথ আপাতত প্রতীক্ষার অপেক্ষায়৷ আনুষ্ঠানিকভাবে রশি ছেড়ে দিয়েছেন কারাত৷ তবে সমর্থকদের সামনে রশি ছাড়লেই নতুন সারথি নতুন উদ্যমে দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সক্ষম হবেন৷

Advertisement ---
---
-----