কোলিয়ারিতে ক্ষতিপূরণের টাকার দাবিতে সিপিএমের আন্দোলন

স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া: ডিভিসি-এমটা কোলিয়ারি এলাকার ক্ষেতমজুররা তাদের নায্য ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন না৷ এই অভিযোগ তুলে আন্দোলনে নামল সিপিএম।

বুধবার সারা ভারত ক্ষেতমজুর ইউনিয়নের ব্যানারে সিপিএমের বাঁকুড়া জেলা সম্পাদক অজিত পতি ও দলের বিধায়ক সুজিত চক্রবর্তীর নেতৃত্বে এলাকায় মিছিল হয়৷ এর পর বাঁকুড়ার বড়জোড়া বিডিও অফিসে অবস্থান বিক্ষোভ ও ডেপুটেশনে অংশ নিলেন কয়েকশো ক্ষতিগ্রস্ত ক্ষেতমজুর পরিবার।

- Advertisement -

আরও পড়ুন: সম্পন্ন নাগরিকরা রেশনে আর ২ টাকায় চাল পাবেন না

আন্দোলনকারীদের দাবী, ২০০৪ সালে বড়জোড়ার বাগুলী কোলিয়ারির জমি অধিগ্রহণ হয়৷ সেই সময় সংশ্লিষ্ট সংস্থা ক্ষতিপূরণের চুক্তি করে৷ সংস্থার সঙ্গে চুক্তিতে ঠিক হয় তারা জমির মালিকদের বকেয়া দেবে৷ একই সঙ্গে ওই জমির ক্ষেতমজুরদের ৫০০ দিনের মজুরি দিয়ে দেবে৷

পরে ২০১১ সালে বেঙ্গল এমটা কাজ শুরু করলেও প্রশাসন-শাসক দলের একাংশের যোগযাজশে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয়নি বলে আন্দোলনকারীদের অভিযোগ। বর্তমানে পিডিসিএল ওই এলাকার কয়লা উত্তোলনের বরাত পেলেও শাসক দলের একাংশের মদতে প্রশাসনের সহযোগিতায় সঠিক দাবিদার ক্ষেতমজুররা ক্ষতিপূরণের টাকা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ উঠেছে। সেই জায়গায় শাসক দল নিজেদের লোকেদের তালিকা তৈরি করে জমা দিয়েছে বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুন: কেডি সিংয়ের মামলায় সেবির কাছে গোপন রিপোর্ট চাইল আদালত

সিপিএম নেতা ও বড়জোড়ার বিধায়ক সুজিত চক্রবর্তী বলেন, শাসক দল ক্ষতিপূরণের জন্য মহকুমা শাসকের কাছে যে তালিকা জমা দিয়েছে সেই তালিকায় ওই কোলিয়ারির কেউ নেই। সম্পূর্ণ অস্বচ্ছ ওই তালিকা তৈরি করে জমা দেওয়া হয়েছে৷ তিনি নতুন তালিকা তৈরি করার দাবি জানিয়েছেন৷

একই সঙ্গে ওই কমিটিতে এলাকার বিধায়ক হিসেবে তাঁকে ও ঘুটগড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধানকে রাখার দাবি জানান। দাবিপূরণ না হলে আগামিদিনে তারা বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন বলেও হুঁশিয়ারি দেন।

আরও পড়ুন: জ্বালানি নিরাপত্তার জন্য ইরান খুবই গুরুত্বপূর্ণ: জাপান

Advertisement ---
---
-----