কংগ্রেসের সঙ্গে জোট নয়, কারাতের পাশে কেরল সিপিএম

দেবময় ঘোষ, কলকাতা: প্রত্যাশা অনুযায়ী, প্রকাশ কারাতের তৈরি ড্রাফট পলিটিক্যাল রেজলিউশন বা খসড়া রাজনৈতিক অঙ্গীকারপত্রকে মান্যতা দিল কেরলের রাজ্য কমিটি৷

তিরুঅনন্তপুরমে নব নির্মিত রাজ্য কমিটির বৈঠকে প্রকাশ কারাতের ড্রাফটকেই পার্টি কংগ্রেসে সমর্থনের সিদ্ধান্ত হয়েছে৷ যার অর্থ, জোটের প্রশ্নে কংগ্রেসের সঙ্গে কোনও সম্পর্কই রাখতে চায় না কেরল সিপিএম৷

পশ্চিমবঙ্গেও কিছু দিন আগে নতুন রাজ্য কমিটি তৈরি হয়েছে৷ তবে রাজ্য কমিটির প্রথম বৈঠক এখনও হয়নি৷ পশ্চিমবঙ্গের সিপিএম যে প্রকাশের কারাতের তৈরি ড্রাফট পলিটিক্যাল রেজলিউশনের সংশোধনী চাইবে, তা বলাই বাহুল্য৷

ইতিমধ্যেই পার্টির সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি পশ্চিমবঙ্গে রাজ্য কমিটির বৈঠকে যোগ দিতে এসে প্রকাশ কারাতের তৈরি ড্রাফট পলিটিক্যাল রেজলিউশনের উপর সংশোধনী আনার জন্য কর্মীদের অনুরোধ জানিয়ে রেখেছেন৷ রাজ্য কমিটির বৈঠকে অধিকাংশ জেলাই ধর্মনিরপেক্ষ-গণতান্ত্রিক জোটের লক্ষ্যে অসাম্প্রদায়িক জোটের পক্ষেই সওয়াল করেছে৷ সেদিক থেকে দেখতে গেলে, হায়দরাবাদের পার্টি কংগ্রেসে সিপিএমের কেরল এবং বেঙ্গল লবির সম্মুখ সমরের ক্ষেত্র প্রস্তুত৷

কিছু দিন আগেই সীতারাম ইয়েচুরি পার্টির অভ্যন্তরে রাজ্য সম্মেলন চলাকালীন বলেছিলেন, ত্রিপুরায় হারের পরিপ্রেক্ষিতে এই খসড়া অঙ্গীকারপত্র সংশোধনের খুবই প্রয়োজন রয়েছে৷ না হলে, আগামী দিনে বিজেপির মত ‘সাম্প্রদায়িক’ ও ‘ফ্যাসিবাদী’ শক্তিকে দেশের মাটিতে আটকানো যাবে না৷

গত জানুয়ারিতে কলকাতায় কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে সীতারাম ইয়েচুরি ও প্রকাশ কারাত পৃথক খসড়া অঙ্গীকারপত্র পেশ করেছিলেন৷ এই ঘটনা ভারতে সিপিএমের ইতিহাসে প্রায় অর্ধ শতাব্দী পর৷ কিন্তু, ভোটাভুটিতে প্রকাশ কারাতের খসড়া অনুমোদিত হয়৷ নিয়ম অনুযায়ী, সারা দেশের প্রত্যেকটি রাজ্য সম্মেলনে অনুমোদিত খসড়া আলোচিত হবে৷ পার্টির সদস্যরা সেই খসড়ার বিপক্ষে সংশোধনী আনতে পারেন৷ খসড়াটি চূড়ান্ত হবে হায়দরাবাদে দলের সাধারণ সম্মেলনে বা পার্টি কংগ্রেসে৷

কেরল, অন্ধ্র প্রদেশ ও তামিলনাড়ুর প্রকাশ কারাতের অনুগামী কমরেডরা কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের বিপক্ষে যেতে চেয়েছেন৷ অন্যদিকে, সীতারাম ইয়েচুরির পক্ষে কথা বলেন পশ্চিমবঙ্গ, বিহার ও ঝাড়খন্ডের কমরেডরা৷

কংগ্রেসের সঙ্গে জোট করার পক্ষেই সওয়াল করছিল সিপিএমের সীতারাম ইয়েচুরি গোষ্ঠী৷ বিধানসভা নির্বাচনের আগে ত্রিপুরার অধিকাংশ কমরেডও কেরল-লাইন নিয়ে কংগ্রেসের সঙ্গে জোটের বিপক্ষেই কথা বলেছিলেন৷ কিন্তু, ত্রিপুরা পরবর্তী পরিস্থিতিতে অনেকেরই মতামতের পরিবর্তন হয়েছে৷ গেরুয়া শক্তিকে আটকাতে কমরেডরা আগামী দিনে কোন পথে যান, তা হায়দরাবাদের পার্টি কংগ্রেসেই ঠিক হবে৷

Advertisement
----
-----