সমকামিতা ইস্যু : ৩৭৭ ধারা বাতিলের পক্ষে সায় সুপ্রিম কোর্টের

নয়াদিল্লি: সংবিধানের ৩৭৭ ধারার বৈধতা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে চলছে শুনানি৷ বৃহস্পতিবার শীর্ষ আদালতের যা পর্যবেক্ষণ তাতে আনন্দিত সমকামীরা৷ তাদের মতে এদিনের সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষণ ৩৭৭ ধারা বাতিলের দিকেই ইঙ্গিত করছে৷ প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রকে নিয়ে গঠিত পাঁচ সদস্যের বিচারপতির বেঞ্চ এ দিন জানিয়েছে, সংবিধানের ৩৭৭ ধারা সমকামীদের প্রতি বিভেদ সৃষ্টি করছে৷ তাদের সামাজিক কলঙ্কের চোখে দেখা হয়৷ এই বৈষম্য তখনই দুর হবে যদি ৩৭৭ ধারা বাতিল করা যেতে পারে৷

সুপ্রিম কোর্টের এই পর্যবেক্ষণেই তাই খুশি এলজিবিটি আন্দোলনকারীরা৷ দীর্ঘদিন সমকামীতাকে আইনি স্বীকৃতি দেওয়ার যে লড়াই তারা শুরু করেছিলেন তা এবার মান্যতা পেতে চলেছে বলে তাদের দাবি৷ এ দিন সাংবিধানিক বেঞ্চ জানিয়েছে, ১৫৮ বছর পুরানো একটি আইন দেশের মধ্যে বৈষম্যের পরিবেশ তৈরি করেছে৷ যা এখন এতটাই গভীরে চলে গিয়েছে যে এই সম্প্রদায়কে হীন চোখে দেখা হয়৷

বেঞ্চ মনে করে, এর ফলে সমকামীদের মধ্যে মানসিক অবসাদ তৈরি হচ্ছে৷ তারা মানসিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ছে৷ প্রধান বিচারপতি এলজিবিটির আইনজীবী মানেকা গুরুস্বামীকে প্রশ্ন করেন, এমন কি কোনও আইন, রীতি বা গাইডলাইন আছে যা সমকামীদের তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করছে? উত্তরে আইনজীবী না জানান৷

- Advertisement -

প্রসঙ্গত সুপ্রিম কোর্ট পাঁচ বছর আগে দিল্লি হাইকোর্টের রায় বাতিল করে ৩৭৭ ধারাকে পুর্নবহাল করে৷ সেই রায় আবার পুর্নবিবেচনা করার আশ্বাস দিয়ে শীর্ষ আদালতে শুরু হয়েছে শুনানি৷ ১৮৬১ সালে ব্রিটিশ আমলে তৈরি হওয়া ৩৭৭ ধারা আনুযায়ী সমকাম প্রকৃতিবিরুদ্ধ যৌন সম্পর্ক৷ এই ধারা অনুযায়ী যারা সমকামীতা শাস্তিযোগ্য অপরাধ৷ সর্বোচ্চ দশ বছর সাজা এবং জরিমানার বিধানও রাখা হয়েছে এই ধারায়৷

Advertisement ---
---
-----