পাক শেলিং থেকে বাঁচাতে কাশ্মীরে ৫,৫০০ বাঙ্কার তৈরি করছে সরকার

শ্রীনগর: সীমান্তের যন্ত্রণা সীমান্তবাসীই বোঝেন৷ আতঙ্কের দিন-রাতে বেঁচে থাকাটাই বড় চ্যালেঞ্জ৷ যখন তখন পাক সেনার হেভি শেলিং৷ বাঁচতে সেই বাঙ্কারে কোনওরকমে রাত কাটানো৷ তাই সীমান্তবাসীর সুরক্ষার কথা মাথায় রেখেই ৫,৫০০ বাঙ্কার তৈরির সিদ্ধান্ত নিল রাজৌরির জেলা প্রশাসন৷

৫,৫০০ আন্ডারগ্রাউন্ড বাঙ্কারের পাশপাশি তৈরি হবে ২০০ কমিউনিটি হল ও বর্ডার ভবন‌৷ যে হারে সীমান্ত পেরিয়ে পাক সেনার হেভি সেলিং বাড়ছে, তাতে দিনেও সীমান্তবাসীর ঘরে থাকা দায় হয়ে যাচ্ছে৷ শেলিংয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দেওয়াল, বাড়ির ছাদ৷ এই পরিস্থিতিতে বাঙ্কারের সংখ্যা না বাড়ালে আশ্রয়স্থলেও টান পড়ছে৷ হাতে গোনা বাঙ্কারে কোনওরকমে মাথা গুজে রাত কাটাচ্ছেন গ্রামবাসীরা৷

জেলা প্রশাসনের এই উদ্যোগের প্রশংসা করেছে জম্মু-কাশ্মীর সরকার৷ ইতিমধ্যেই, প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ অর্থও পাঠিয়েছে কেন্দ্র৷ দেরি না করেই তাই কাজ শুরু করতে চাইছে জেলা প্রশাসন৷ গোটা প্রকল্পে খরচ হচ্ছে মোট ১৫৩.৬০ কোটি টাকা৷ ৫,৫০০ বাঙ্কারের মধ্যে থাকবে ফ্যামিলি বাঙ্কার, কমিউনিটি বাঙ্কার৷ এছাড়া আলাদা ভাবে তৈরি হচ্ছে ২০০ কমিউনিটি হল, বর্ডার ভবন৷ জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক জানাচ্ছেন, মোট ৫,১৯৬টি ফ্যামিলি বাঙ্কার, ২৬০টি কমিউনিটি বাঙ্কার তৈরি হবে৷ প্রত্যেক পরিবার পিছু থাকবে একটি করে ফ্যামিলি বাঙ্কার৷ অন্যদিকে স্কুল, হাসপাতাল, পুলিশ স্টেশন, পুলিশ পোস্ট, সরকারি দফতর, পঞ্চায়েত ঘরের সুরক্ষায় থাকবে কমিউনিটি বাঙ্কার ও কমিউনিটি হল ৷

- Advertisement -

সীমান্ত থেকে ৩ কিলোমিটারের মধ্যে থাকা অঞ্চলে তৈরি হবে আন্ডারগ্রাইন্ড বাঙ্কার৷ রাজৌরি,সুন্দরবেনি, ডুঙ্গি, মাঞ্জাকোট নিয়ে মোট ১২০ কিমি এলাকা জুড়ে বাঙ্কারের কাজ হবে৷ জেল প্রশাসনের দাবি, বর্ডার ভবনে একসঙ্গে ১০,০০০ মানুষ থাকতে পারবেন৷ এক সপ্তাহের মধ্যেই বাঙ্কার তৈরির কাজ শুরু হবে৷ সীমান্তবর্তী এলাকায় বাঙ্কার তৈরির কাজে বরাবরই পাশে থেকেছে কেন্দ্র৷ গতবছর ডিসেম্বর মাসেই কেন্দ্র সীমান্তবর্তী এলাকায় বাঙ্কার তৈরির জন্য ৪১৫.৭৩ কোটি টাকা বরাদ্দ করে৷ সবকিছু ঠিক পথে চললে চলতি বছরেই সীমান্তবাসীর সুরক্ষায় প্রস্তুত থাকবে ৫,৫০০ টি বাঙ্কার৷

Advertisement
---