কলকাতা: সপ্তমীতে আট থেকে আশির ঠিকানা যেন শোভাবাজার রাজবাড়ি৷ উত্তরের বনেদি পুজোয় সকাল থেকে ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো৷ বারোয়ারির থিমের ভিড়েও দুশো বছরের পুরনো পুজো ও রাজবাড়ির দেবী দর্শনের স্বাদ পেতে শহর থেকে শহর তলির সব রাস্তা গিয়ে মিশেছে শোভাবাজার রাজবাড়িতে৷

১৭৫৭ সালে ধুমধাম করে বাড়িতে দুর্গোপুজো শুরু করেন রাজা নবকৃষ্ণ দেব৷ রাজবাড়ির ঠাকুর দালানে দেবী দুর্গার আবাহন করা হয়৷ সে বছরই পলাশির যুদ্ধ জিতেছিল ইংরেজরা৷ এরপর শুরু হয় ইংরেজ শাসন৷ যুদ্ধের বিজয় উৎসব পালনের জন্যই নাকি দেবীর আরাধণা করা হয়েছিল বলেন অনেকে৷ রাজবাড়ির প্রথম পুজোয় এসেছিলেন লড ক্লাইভও৷ ৩৬ বছর নিসন্তান থাকায় পর ভাইপো গোপীমোহনকে দত্তক নিয়েছিলেন নবকৃষ্ণ দেব৷ পরবর্তীকালে তাঁর নিজের সন্তান হলে পৃথক ভাবে রাস্তার উল্টো ফুটের রাজবাড়িতে একটি দুর্গোপুজো চালু করা হয়৷ সেই পুজো শুরু ১৭৯০ সালে৷ সেই পুজো এবার পা দিল ২২৯ তম বর্ষে৷

শোভাবাজার নবকৃষ্ণ দে স্ট্রিটের দুই ফুটে দুটি রাজবাড়ী রয়েছে৷ উত্তর দিকে বাড়িটি রাজা নবকৃষ্ণ দেবের বড় ছেলে গোপীমোহনের ছেলে রাধাকান্ত দেবের পুজো নামে পরিচিত৷ দক্ষিণ দিকের পুজোটি রাজকৃষ্ণ দেবের পুজো নামে পরিচিত৷ দুই বাড়িতে সপ্তমীর সকালে ছিল উপছে পড়া ভিড়৷

শুধু তাই নয়, দুই রাজবাড়িই যেন পুজোর দিনে জেন ওয়াইয়ের কাছে পছন্দের সেলফি জোন৷ রাধাকান্ত দেবের পুজোয় যেমন সেলফি স্টিক উড়িয়ে স্বপরিবার গ্রুপফি তোলার হিরিক দেখা গেল৷ রাজবাড়ির উঠানে দাঁড়িয়েও পোজ দিয়ে চলল দেদার ফটোশ্যুট৷

--
----
--