একাধিক বলিউডের পরিচালক, লেখককে টার্গেট করেছিলেন দাউদ ইব্রাহিম

নয়াদিল্লি : ৩ মাস আগে ডি কোম্পানির ৩ শুটারের বিরুদ্ধে চার্জশিট ফাইল করেছে স্পেশাল সেল৷ সেই সেল জানিয়েছে, বেশ কয়েকজন পরিচালক ও লেখককে খুন করতে চেয়েছিল দাউদ ইব্রাহিম৷ তার মধ্যে ছিল কফি উইথ ডি-এর পরিচালক৷ তার মধ্যে ছিল লেখক তারেক ফতাহের নামেও৷

এমনকী শুটারদের উপরে ছোটা রাজন সম্পর্কে তথ্য জোগাড় করার দায়িত্বও ছিল৷ তিহার জেল ও হাসপাতালে গিয়ে দাউদের এই প্রাক্তন ডানহাত সম্পর্কে তথ্য নিতে বলা হয়েছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ৷ একটি পবিত্র বই পোড়ানোর পর ডি কোম্পানির ব়্যাডারে এসে যায় লেখক ফতেহ৷ অবশ্য শুধু বই পোড়ানোর বিষয় নয়৷ বিতর্কিত মন্তব্য করার জন্যও দাউদের নেকনজর থেকে বেরিয়ে গিয়েছিলেন তিনি৷

২০১৭ সালে সুনীল গ্রোভার অভিনীত ছবি কফি উইথ ডি মুক্তি পায়৷ ছবির নির্মাতারা জানিয়েছিলেন, তাঁরা অন্ধকার জগতের বেতাজ বাদশা দাউদ ইব্রাহিমের থেকে হুমকি ফোন পাচ্ছেন৷ দাউদের হয়ে ফোনগুলি করছে ছোটা সাকিল৷ তাঁদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে, তারা যেন ছবির কিছু অংশ বাদ দিয়ে দেয়৷ দাউদকে নিয়ে যে সব দৃশ্যে মজা করা হয়েছিল সেই দৃশ্যগুলি নিয়েই আপত্তি ছিল দাউদের৷ লেখক-পরিচালক বিশাল মিশ্র একটি রেকর্ডিং প্রকাশ করেছিলেন৷ তাঁকে ও তাঁর টিমকে যে হুমকি দেওয়া হচ্ছে, সেটি ছিল প্রমাণ৷

- Advertisement -

গত নভেম্বরে দিল্লি পুলিশ দাউদের এক শুটারকে গ্রেফতার করে৷ তার নাম নাসিম৷ তার নামে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল৷ তার আগে জুনেইদ চৌধুরী গ্রেফতার হয়েছিল৷ সে জানিয়েছিল ছবি পরিচালকদের টার্গেট করছে দাউদ৷ ২০১৬ সাল থেকে ২ বার গ্রেফতার হয় জুনেইদ৷ সে ছোটা সাকিলের সঙ্গে যোগাযোগের কথাস্বীকার করে৷ পুলিশ জানিয়েছে, নাসিমের কাছে হায়দরাবাদে এক সেলেব্রিটিকে সরিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব ছিল৷ উত্তর প্রদেশের গ্যাংস্টার মুন্না সিংয়ের সঙ্গেও সে যোগাযোগ রেখেছিল৷ দুজনের গুরগাঁওয়ে দেখা করার কথা ছিল৷ ২টি কনট্রাক্টের জন্য যথাক্রমে ১.৫ কোটি ও ৪৫ লাখ টাকা পেয়েছিল সে৷

Advertisement
----
-----