নয়াদিল্লি: প্লে-অফ আগেই নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে৷ হাতে পড়ে থাকা দু’ম্যাচ জিতলে গ্রুপ পর্বে শীর্ষে থেকে এলিমিনেটরে যাওয়ার সুযোগ৷ এমন পরিস্থিতি পচা শামুকে পা কেটে সমস্যা বাড়াল ধোনির সুপারকিংস৷

দিল্লির ঘরের মাঠে মাহিরা ম্যাচ হারল ৩৪ রানে৷ টি-টোয়েন্টিতে বড় ব্যবধানে এই হারের ফলে টপ টু থেকে ছিটকে যেতে পারে চেন্নাই৷ শেষ ম্যাচ হারলে চেন্নাইয়ের পয়েন্ট দাঁড়াবে ১৬৷ শনিবার নাইটরা হায়দরাবাদকে হারালে দীনেশরাও ১৬ পয়েন্টে শেষ করবে৷ সেক্ষেত্রে নেট রান রেটের বিচারে ধোনিদের টপকে দু’নম্বরে চলে আসতে পারে নাইটব্রিগেড৷

ধোনিদের নেট রান রেট এখন +০.২২০, আর নাইটরা সেখানে -০.০৯১৷ নাইটদের সঙ্গে এক ব্যবধান থাকলে ভালো, নাহলে নাইটদের কাছে ২নম্বর স্থানটা খোয়াতে হতে পারে৷ অঙ্কের এই ফারাক ১৪ ম্যাচের পর পালটে গেলে তিন বা চারে শেষ করতে হতে পারে ধোনিদের৷ সেক্ষেত্রে পয়েন্ট তালিকায় আট নম্বরে থাকা দিল্লির কাছে এই হারকেই দুষতে হবে৷

বরফ শীতল মাথায় ধোনি অবশ্য অঙ্কের এসব কচকচানিতে একেবারে আগ্রহী নয়৷ ম্যাচ হারলেও হাসি মুখেই বলে গেলেন, ‘আমরা ম্যাচ বাই ম্যাচ ভাবছি৷ দলকে পয়েন্ট টেবলের দিকে নজর না দিয়ে খেলতে বলেছিলাম৷ ভুলক্রুটিগুলো অবশ্যই পরের ম্যাচে শুধরে নিতে হবে৷’ দলের বোলিং নিয়ে একটু ঘষামাজা প্রয়োজন বলেই মনে করছেন ধোনি৷

১৬৩ রান টার্গেট তাড়া করতে নেমে এদিন শুরুটা ভালই করেছিল চেন্নাই৷ পাওয়ার প্লে-তে কোনও উইকেট না হারিয়ে রায়ডু-ওয়াটসনরা ৪৪ রান তোলেন৷ দুই ওপেনার ফিরে যেতেই দিল্লির বোলারদের সামনে মাথা নোয়ায় সুপারকিংস৷ মিডল অর্ডারে রায়না ১৫, স্যাম বিলিংস ১রানে ডাগআউটে ফেরেন৷ লামিছানে ও অমিত মিশ্র’র স্পিন আক্রমণের সামনে ২৩ বলে ১৭ রান করতে পারেন ধোনি৷ জাদেজা ১৮ বলে ২৭ রানের ইনিংস খেলে চেষ্টা করলেও শেষরক্ষা হয়নি৷ দিল্লি ম্যাচ জেতে ৩৪ রানে৷ দুটি করে উইকেট পেয়েছেন অমিত ও ট্রেন্ট বোল্ট, একটি করে উইকেট লামিছানে ও হার্সাল প্যাটেলের৷  এদিন প্রথমে ব্যাট করে পন্তের ৩৮ ও বিজয় শংকরের ৩৬ রানে ভর করে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৬২ রান তোলে ডেয়ারডেভিলস৷

----
--