নয়াদিল্লি: গোরক্ষার নামে যে নরহত্যা হচ্ছে তা বন্ধ করার উপায় বলে দিলেন জামিয়াত উলেমা-ই-হিন্দ প্রধান মৌলানা আরশাদ মাদনি৷ তার মতে গরুকে জাতীয় পশু ঘোষণা করে দিলে মানুষের জীবন বাঁচানো যাবে৷
উত্তরপ্রদেশের শাহারনপুরে সাংবাদিকদের সামনে তিনি বলেন,‘‘কেন্দ্রকে অনুরোধ করব গরুকে জাতীয় পশু ঘোষণা করে দিক৷ তাহলে গরু ও মানুষ-উভয়ের জীবনই বাঁচবে৷’’

দেশের নানা প্রান্ত থেকে গোরক্ষার নামে নিরীহ মানুষদের উপর আক্রমণের খবর সামনে এসেছে৷ স্বঘোষিত গোরক্ষকদের তাণ্ডবের বলি হচ্ছেন এক বিশেষ ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মানুষ জন৷ বিশেষত উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থান এবং হরিয়ানায় একের পর এক মানুষ গোরক্ষকদের শিকার হয়েছেন৷ ফ্রিজে গোমাংস রাখা হয়েছে এই গুজবে উত্তরপ্রদেশে দুই ব্যক্তিকে পিটিয়ে মারা হয়৷ এই ধরনের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় দেশ জুড়ে আলোড়ন তৈরি হয়৷ গোরক্ষার নামে রক্ষকদের তাণ্ডবের নিন্দার ঝড় ওঠে সব মহলে৷ তাতেও বিশেষ হেলদোল দেখা যায়নি গোরক্ষকদের মধ্যে৷

Advertisement

এদিকে বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে সুপ্রিম কোর্টও৷ এক পিটিশনের পরিপ্রেক্ষিতে শীর্ষ আদালত উত্তর প্রদেশ, রাজস্থান ও হরিয়ানা সরকারকে তাদের বক্তব্য জানাতে বলে৷ মহাত্মা গান্ধীর পপৌত্র তুষার গান্ধী আদালতে পিটিশনটি দাখিল করেন৷

পিটিশনে তিনি জানান, এই তিনটি রাজ্য সরকার গোরক্ষা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের ৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭র রায় মানছে না৷ সেই রায়ে শীর্ষ আদালত সাফ জানিয়েছিল, গোরক্ষার নামে যে হিংসা ছড়াচ্ছে, যারা আইন নিজেদের হাতে তুলে নিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে৷

মামলাকারীর বক্তব্য শোনার পর বিচারপতি এ এম খানউইলকর এবং বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড় এই তিন রাজ্য সরকারকে তাদের বক্তব্য ৩ এপ্রিলের মধ্যে জানাতে বলেছে৷

----
--