খুনের পিছনে কি তিনি? জানতে মুকুলকে তলব অমিত শাহদের

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: একদিকে সিবিআই-এর সঙ্গে সংঘাতের জেরে শিরোনামে রাজ্য সরকার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে সুর চড়াচ্ছেন বিজেপি নেতৃত্ব। এরই মধ্যে ভর সন্ধেয় তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় নাম জড়াল মুকুল রায়ের। মোদী-অমিত শাহের মত নেতা এসে যখন পশ্চিমবঙ্গের মাটি শক্ত করতে চাইছে, তখন খুনের এফআইআরে মুকুল রায়ের নাম স্বাভাবিকভাবেই অস্বস্তিতে ফেলেছে গেরুয়া শিবিরকে।

তাই এবার সরাসরি দিল্লিতে ডেকে পাঠানো হয়েছে মুকুল রায়কে। দলের তরফে রুটিন ভিজিট বলে উল্লেখ করা হলেও সূত্রের খবর, হাঁসখালিতে বিধায়ক খুনের ঘটনা নিয়েই তড়িঘড়ি তলব মুকুলকে। রবিবারই দিল্লি পৌঁছেছেন তিনি।

শনিবার সন্ধেয় হাঁসখালিতে খুন হন কৃষ্ণগঞ্জের বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাস। আর সেই ঘটনায় অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। আর স্পষ্টভাবে বললেন, খাস মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে। এমনকি এফআইআরে তাঁর নামও রয়েছে। এরপরই সাংবাদিক বৈঠক করে সুর চড়িয়েছেন মুকুল রায়। নিরপেক্ষ তদন্তও দাবি করেছেন তিনি।

- Advertisement -

কিন্তু যতই সাংবাদিক বৈঠক করে মুখরক্ষার চেষ্টা হোক, তিনি নির্দোষ প্রমাণিত না হলে অস্বস্তির কাঁটাটা লেগেই থাকবে। ২০১৯-এ বাংলা যখন লক্ষ্য তখন অমিত শাহদের কিছুটা হলেও ঘুম উড়েছে এই ঘটনায়। একদিকে যখন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাজ্যে এসে ‘দিদি’ -কে বার্তা দিয়ে যাচ্ছেন, তখন তাঁদেরই দলের নেতার নামে এমন প্রকাশ্যে খুনের অভিযোগ থাকলে মুস্কিল।

সূত্রের খবর, হাঁসখালির খুনে কেন নাম জড়াল মুকুল রায়ের সেই বিষয়ে উচ্চনেতৃত্ব প্রশ্ন করবে মুকুল রায়কে। কী অভিযোগ, কেন অভিযোগ, কেনই বা তাঁর নাম, এসব প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হবে মুকুল রায়কে। শীর্ষনেতাদের প্রশ্নের মুখে দুঁদে রাজনীতিক মুকুল রায় জানাবেন, তৃণমূলের এই দাবির কোনও ভিত্তি নেই।

এছাড়া, এই ইস্যুতে তৃণমূলের বিরুদ্ধে আইনি পথে কীভাবে লড়াই করা যায়, সেটাও ভেবে দেখবে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব।

খুনের পিছনে কি তিনি? জানতে মুকুলকে তলব অমিত শাহদের

খুনের পিছনে কি তিনি? জানতে মুকুলকে তলব অমিত শাহদেরবিস্তারিত পড়তে ক্লিক করুন https://bit.ly/2N3D3dy

Kolkata24x7 यांनी वर पोस्ट केले सोमवार, ११ फेब्रुवारी, २०१९

বিধায়ক খুনের পিছনে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের হাত রয়েছে। প্রথম থেকেই এই অভিযোগ করে আসছিল তৃণমূল কংগ্রেস। মুকুল-বাবুর নাম উল্লেখ করে সংবাদ মাধ্যমের সামনে অভিযোগ করেন নদিয়া জেলা তৃণমূলের সভাপতি গৈরীশংকর দত্ত। তাঁর কথায়, “গত তিন বছর ধরে মুকুল রায় আমাদের ক্ষতি করার অনেক চেষ্টা করে চলেছে। এবার সত্যজিতকে খুন করে দিল। মুকুল রায় নদিয়ার ঢুকলে ফল ভালো হবে না।”

রবিবার তিনি সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, তদন্ত যদি নিরপেক্ষভাবে তদন্ত করাতেই হয় তাহলে মমতার বন্ধু চন্দ্রবাবুর রাজ্যের এজেন্সি দিয়ে তদন্ত করানো হোক।