কোপেনহেগেন: বোরখা ও নিকাব দিয়ে আর মুখ ঢাকতে পারবেন না মুসলিম মহিলারা৷ এই দুটি পোশাককে আংশিক নিষিদ্ধ করার পক্ষে সায় দিল ডেনমার্ক পার্লামেন্ট৷ শুক্রবার বেশিরভাগ রাজনৈতিক দলই পার্লামেন্টে মুসলিম মহিলাদের বোরখা ও নিকাব দিয়ে মুখ ঢাকার বিরোধীতা করে৷ তারপরেই ফেসবুকে বোরখা বা হিজাব দিয়ে মুখ ঢাকা নিষিদ্ধ করার ইঙ্গিত দেন বিদেশমন্ত্রী অ্যানডার্স স্যমুয়েলসেন৷

শরীরকে পুরোপুরি আবৃত রাখতে পোশাকের উপর মুসলিম মহিলারা নিকাব ও বোরখা ব্যবহার করেন৷ এই দুটি পোশাকের মধ্যে পার্থক্য একটাই৷ নিকাবে কেবল শরীরের চোখের অংশটি উন্মুক্ত থাকে৷ বোরখায় -মাথা থেকে পা- সারা শরীর ঢাকা থাকে৷ মুসলিম মহিলাদের এই পোশাক পড়া নিয়ে দ্বিধা বিভক্ত ইউরোপীয়ান দেশগুলি৷ উদারবাদীদের মতে ধর্মীয় পোশাকের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে সরকার কোন ব্যক্তির ধর্মাচারণে আঘাত হানতে পারে না৷ আবার অনেকের মতে এই ধরনের পোশাক আসলে মুসলিম মহিলাদের নিপীড়নের চিহ্ন৷

Advertisement

এর আগে ফ্রান্স, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ড, বুলগেরিয়া, জার্মান ও বাভারিয়র মতো ইউরোপীয়ন দেশে বোরখা ও নিকাবের উপর আংশিক নিষেধাজ্ঞা জারি আছে৷ এই সব দেশগুলিতে প্রকাশ্যে বোরখা ও নিকাব পড়ে মুখ ঢাকা নিষিদ্ধ৷

ডেনমার্কের লিবারেল দলের মুখপাত্র জেকব জেনসেন এই সিদ্ধান্তের সঙ্গে ধর্মকে এক করে দিতে নারাজ৷ তিনি বলেন, ধর্মীয় পোশাকের উপর কোন নিষেধাজ্ঞা জারি করা উদ্দেশ্য নয়৷ পোশাক দিয়ে মুখ ঢাকাকে নিষিদ্ধ করতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া৷ এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে ডেনমার্কের মুসলিম মহিলারা প্রকাশ্যে আর মুখ ঢাকতে পারবেন না৷

চলতি বছর জুন মাসে নরওয়ে সরকার কিন্ডারগার্ডেন, স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয়ে নিকাব ও বোরখা দিয়ে মুখ ঢাকা বন্ধ করতে একটি প্রস্তাব দেয়৷ প্রস্তাবটি এখনও আলোচনার স্তরেই আছে৷

----
--