চার-পাঁচ বছরে প্রথাগত মাধ্যমকে ছাপিয়ে যাবে ডিজিটাল মাধ্যম

নয়াদিল্লি: স্মার্টফোন এবং ব্রডব্যান্ডের বিস্তারের জেরে এদেশে ২০২১-২২ সালে প্রথাগত সংবাদ মাধ্যমকে ছাপিয়ে যাবে ডিজিটাল (Digital) মাধ্যম৷ ইওয়াউ ইন্ডিয়া এমনই কথা শোনাচ্ছে৷

আরও পড়ুন : বাংলা সংবাদমাধ্যমে ‘কালো দিন’ এনে আনন্দবাজার গোষ্ঠীতে ব্যাপক ছাঁটাই

ই ওয়াই ইন্ডিয়ার মিডিয়া এবং এন্টারটেনমেন্ট উপদেষ্টা আশিস ফিরওয়ানি জানান, ২০১৯-২০ সাল নাগাদ এদেশের ৫০শতাংশ জনগনের কাছে স্মার্টফোন পৌছে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে৷অন্যদিকে ২০১২-২২ সালে ব্রডব্যান্ড হয়ে যাবে স্মার্টফোনের সংখ্যার এক তৃতীয়াংশ বলে মনে করা হচ্ছে৷ বাজার গবেষকদের মতে, ভারতীয়রা গড়ে প্রতিদিন আড়াই ঘন্টা ব্যয় করে টেলিভিশন, রেডিও খবরের কাগজ ম্যাগাজিনের মতো প্রথাগত মাধ্যমে, তুলনায় ডিজিটাল মিডিয়ার জন্য সময় দেয় এক ঘন্টা৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন : বাংলাবাজারের সংবাদমাধ্যমের পর্দা ফাঁস টেলিগ্রাফের ‘বিতাড়িত’ কর্মীর!

তিনি তুলে ধরেছেন যেখানে আমেরিকায় কেবল টিভির খরচ মাসে ৮০-৯০ ডলার এবং ব্রডব্যান্ডের খরচ ২৫-৩০ ডলার সেখানে ভারতে কেবলটিভির খরচ ২৫০ টাকা এবং ব্রডব্যান্ডের খরচ ৫০০-১০০০ টাকা৷ এই সমীকরণ বদলে যাবে ২০২০-২১ সালে বলে তাঁরা দাবি করছেন৷ ফলে ওই সময়ে প্রথাগত মাধ্যমের পতন এবং ডিজিটাল মাধ্যমের উত্থান লক্ষ্য করা যাবে৷

আরও পড়ুন: আনন্দে কর্মী ছাঁটাইয়ে অশনি সংকেত বাংলা বাজারে

এরফলে প্রথাগত ভাবে ইংরেজি সংবাদপত্র ধাক্কা খাবে প্রথম কারণ সেখানে পরিবর্তনটা জোরদার হয়েছে৷ অন্যদিকে আপাতত আঞ্চলিক ভাষায় সংবাদপত্রের বৃদ্ধির সুযোগ রয়েছে কারণ এই ডিজিটাল মাধ্যমের বিস্তার আঞ্চলিক ভাষায় তুলনায় কিছুটা ধীরে হবে৷ ৷ আগামি তিন বছরে ডিজিটাল মাধ্যমের বাজার ৮৪৯০ কোটি টাকা থেকে ২০,০০০ কোটি টাকা হবে বলে ধরা হচ্ছে৷এই বাজার ২০১৬ সালে মূলত রয়েছে ওটিটি এবং ডিজাটাল বিজ্ঞাপন, ভিডিও ওটিটি সাবস্ক্রিপশন, মিউজিক ওটিটি সাবস্ক্রিপসন এবং গেমিং (যা অ্যাপ মারফত টাকা দেওয়া হয়)৷

ই ওয়াই ইন্ডিয়া আশা করছে , ২০২০ সালের মধ্যে স্মার্টফোন পৌঁছে যাবে ৫৯শতাংশের কাছে যেখানে ২০১৫ সালে তা ছিল ৩১শতাংশের হাতে৷ ডিজিটাল বিজ্ঞাপনে খরচ ২০১২ সালে পৌঁছে যাবে ১৮৫০০ কোটি টাকায় যা গোটা বিজ্ঞাপনের বাজারে একটা বড় অংশ৷তারপরে আসল পরিবর্তন নজরে আসবে কারণ ২০২০ সাল থেকে ২০২২ সালে এই ক্ষেত্রের বাজারটা ২০,০০০ কোটি টাকা থেকে ৩০,০০০কোটি টাকায় পৌছে যাবে বলে জানান আশিস ফেরওয়ানি৷

Advertisement
---