জম্মু কাশ্মীরের পুলিশ সুপার বদল

শ্রীনগর: দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামা, অনন্তনাগ, কুলগামে, সোপিয়ানে পুলিশ কর্মীদের বাড়িতে চলেছিল জঙ্গি তাণ্ডব। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ৫ পুলিশ কর্মীর মোট ৮ পরিবারের সদস্যকে অপহরণ করে জঙ্গিরা৷ পরিবারের সদস্যদের বাঁচাতে রীতিমতো পিছু হটে জম্মু কাশ্মীর পুলিশ। হিজবুল মুজাহিদিন কমান্ডার রিয়াজ নাইকোর বাবা আসাদুল্লাহ নাইকোকে ছেড়ে দেওয়া হয়৷ আসাদুল্লাহকে পুলিশ দুদিন নিজেদের হেফাজতে রেখেছিল। পুলওয়ামা থেকে তাকে গ্রেফতার করে জম্মু কাশ্মীর পুলিশ।

হিজবুল কমান্ডার রিয়াজ ঘোষণা করেছিল পুলিশ নিজের স্বার্থেই তার বাবাকে ছেড়ে দেবে। কারণ সেখানে অনেকগুলো নিরীহ প্রাণের জীবন বিপন্ন হওয়ার আশঙ্কা থাকবে। আর তার বাবাকে ছেড়ে না দেওয়া হলে খুব খারাপ পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকতে হবে পুলিশ কর্মীদের।

আরও পড়ুন: ‘ইমরানের পাকিস্তান ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বে উৎসাহী’

- Advertisement -

তবে শুধু হিজবুল কমান্ডারের বাবাই নয়, জঙ্গিদের যেসব পরিবারের সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছিল, তাদের অনেককেই ছেড়ে দেওয়া হবে বলে জানানো হয় জম্মু কাশ্মীর পুলিশের পক্ষ থেকে।

এই ঘটনাকে ভালো ভাবে নেয়নি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক৷ তাদের মতে এতে রাজ্যের পুলিশ বিভাগের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে৷ এরপরেই জম্মু কাশ্মীরেরপুলিশ সুপারকে সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়৷ জম্মু কাশ্মীর পুলিশ সুপার এস পি বৈদের জায়গায় শুক্রবার নতুন পুলিশ প্রধান হয়ে এলেন দিলবাগ সিং৷ বৃহস্পতিবার এস পি বৈদকে পরিবহণ কমিশনার পদে বদলি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে৷

আরও পড়ুন: বামেদের ডাকা ভারতবন্ধে থাকছে না ফরোয়ার্ড ব্লক

১৯৮৭ সালের ব্যাচের আইপিএস অফিসার দিলবাগ সিং৷ খুব সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাঁর হাতে দায়িত্বভার তুলে দেন এস পি বৈদ৷ দিলবাগ আগে ডিজি (কারা) ছিলেন৷ সেই দায়িত্বও একই সঙ্গে পালন করবেন তিনি৷
বৃহস্পতিবার রাতেই পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় বৈদকে৷ ১৯৮৬ সালের ব্যাচের আইপিএস অফিসার বৈদের সঙ্গে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের মনোমালিন্যের জেরেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গিয়েছে৷

তাঁর দায়িত্ব হস্তান্তরের আগে বৈদ জানান, তিনি কাশ্মীরের মানুষের সংস্পর্শে আসতে পেরে ও তাঁদের জন্য কাজ করতে পেরে সন্তুষ্ট৷ তবে পুলিশের অভ্যন্তরীণ এই দায়িত্ব হস্তান্তরের বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা করেছেন জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা৷ তিনি বলেন এই অশান্ত পরিস্থিতিতে পুলিশ সুপারের মত বড় প্রশাসনিক পদে বদল উচিত হয়নি৷ বৈদ স্থানীয় পুলিশ কর্মীদের সঙ্গে সমন্বয় সাধন করে ভালো কাজ করছিলেন বলে মত ওমর আবদুল্লার৷

প্রসঙ্গত ১৯৮৬ সালের ব্যাচের এই আইপিএস অফিসার এর আগে অনন্তনাগের ডেপুটি ইনস্পেকটর জেনারেল হিসেবে থাকাকালীন সাসপেন্ড হয়ে যান৷ তার বিরুদ্ধে ২০০০ সালের নিয়োগ দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে৷

Advertisement ---
---
-----