লোকসভা ভোটের পর তৃণমূল নেতারা জেলের ভিতর থাকবে: দিলীপ ঘোষ

স্টাফ রিপোর্টার, সিউড়ি: মশানজোড়ের রং নিয়ে ফের মুখ খুললেন দিলীপ ঘোষ৷ তিনি মঙ্গলবার বলেন, “রং দিয়ে সব কিছু দখল করার চেষ্টা করছে রাজ্য সরকার। তারই প্রতিবাদ করেছে ঝাড়খণ্ড৷ কারণ পশ্চিমবঙ্গ সরকার দেখাশোনা করলেও মশানজোড় ড্যাম ঝাড়খণ্ড রাজ্যের মধ্যে রয়েছে। ফলে দুই রাজ্য ভাগাভাগি করে নিক। কিংবা যে রং ছিল সেই রং থাক৷’’

অনুব্রত মণ্ডলের জেলায় গিয়ে শাসকদলকে বিঁধে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘‘বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়ে যারা গামলা গামলা মিষ্টি খেয়েছিল, আমরা তাদের এবার করলা খাওয়াব৷’’ মঙ্গলবার রামপুরহাটে দলের জেলা পদাধিকারিদের নিয়ে বৈঠকে বসেন রাজ্য সভাপতি। সঙ্গে ছিলেন দলের বীরভূম জেলা সভাপতি রামকৃষ্ণ ঘোষ-সহ অন্যান্য নেতৃত্ব।

আরও পড়ুন: মেডিক্যালের চিকিৎসকের ‘ভুল’, শিশুর বাঁ পায়ের বদলে ডান পায়ে অস্ত্রোপচার

- Advertisement DFP -

সভা শুরুর আগে সাংবাদিক সম্মেলনে মশানজোড় নিয়ে দুই রাজ্যকে মিলে সমাধান সূত্র খোঁজার পরামর্শ দেন এই বিজেপি নেতা৷ বলেন, “এই রাজ্য একটা ব্র্যান্ড বের করেছে নীল সাদা। এমনকী রেল লাইনের প্ল্যাটফর্ম থেকে এয়ারপোর্টের দেওয়াল পর্যন্ত রঙে দখল করার চেষ্টা চালাচ্ছে। ছাড় যাচ্ছে না কেন্দ্রীয় সরকারের তৈরি সৌধও৷’’

এরপরই তিনি বলেন, যে রং ছিল সেটা থাকলে অসুবিধা কোথায়। ওই রাজ্যের মানুষেরও তো একটা স্বাভিমান রয়েছে। তাই তাঁরা বাধা দিয়েছেন। লোগো লাগিয়েছেন। তা দুই রাজ্যের লোগোই থাক৷ এটাই তো হওয়া উচিত। তা না হলে দুই রাজ্য অর্ধেক করে ভাগ করে নিক। তার পর নিজের নিজের লোগো লাগাক৷

আরও পড়ুন: পর্তুগিজ কলোনিতে উড়বে ৩০০ ফুটের জাতীয় পতাকা

এদিন লোকসভা ভোট প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষের মন্তব্য, ‘‘লোকসভা নির্বাচন হয়ে গেলেই তৃণমূল নেতারা জেলের ভিতরে থাকবে৷ লোকসভা থেকেই তৃণমূলের পতন শুরু হবে৷’’ এদিকে মহম্মদবাজারের মধ্যে গণপুরে এককভাবে জয়ী হয়েছে বিজেপি। এদিন গণপুরে সেই বিজয়ী প্রার্থীদের সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি৷

Advertisement
----
-----