‘দিলীপ ঘোষই রাজ্যের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী’

স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: বিজেপি পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতায় এলে সেই সরকারের মুখ্যমন্ত্রী হবেন দিলীপ ঘোষ৷ কার্যত ঘোষণা ঢঙেই একথা জানিয়ে দিল বিজেপি৷

শুক্রবার পশ্চিম মেদিনীপুরের বিদ্যাসাগর মোড়ে বিজেপির একটি সভা ছিল৷ সেখানে বিজেপির রাজ্য সভাপতিকে সম্বোধন করার সময় একথাই শোনা গেল৷

আরও পড়ুন: চিনকে চেনা সহজ নয়, বুঝল রাজ্য

- Advertisement -

আর এই কথা বললেন বিজেপির পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলা সভাপতি শমিতকুমার দাস৷ তিনি রাজ্যের পরবর্তী বিজেপি সরকারের মুখ্যমন্ত্রী দিলীপ ঘোষ বলে সম্বোধন করেন৷ আর তার পরই কার্যত হাততালিতে ফেটে পড়ে গোটা মাঠ৷

নিয়মিত যখন বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদে রদবদল নিয়ে জল্পনা উড়ছে রাজ্য রাজনৈতিক মহলে, সেই সময় দলের এক জেলা নেতার এই মন্তব্য যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ৷ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ব্যাখ্যা, এর অর্থ বিজেপির কর্মীদের একটা বড় অংশ এখনও চায় দিলীপ ঘোষকে৷ তারা চায় দিলীপবাবুই বিজেপির রাজ্য সভাপতি পদে থাকুন৷ ২০২১ সালে বিজেপি ক্ষমতায় এলে দিলীপ ঘোষকে মুখ্যমন্ত্রী পদেও দেখতে চান অনেকে৷ সেটাই কার্যত শমিতবাবুর বক্তব্যে ধরা পড়েছে বলে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের দাবি৷

অন্যদিকে এদিনের সভায় বিজেপির রাজ্য সভাপতি নিজের স্বভাবসিদ্ধ ভঙ্গিতে তৃণমূল কংগ্রেসকে আক্রমণ করেছেন৷ বলেছেন, ‘‘সত্যের রাজনীতি করি৷ কাউকে ভয় পাই না৷’’ এর পর তিনি তৃণমূল নেতাদের জন্য ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়সীমাও দিয়ে দেন৷ বলেন, ‘‘ডিসেম্বের মধ্যে না শুধরালে টিএমসিকেও শুধরে দেব।’’

আরও পড়ুন: নিহত প্রিসাইডিং অফিসারের বাড়িতে আব্দুল মান্নান

একই সঙ্গে এদিন তাঁকে পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষকেও আক্রমণ করতে দেখা যায়৷ তিনি নাম না করে ভারতীকে আক্রমণ করেন৷ খড়গপুরে শ্রীনু নায়ডু হত্যাকাণ্ডে তাঁর নাম জড়িয়ে দেওয়ার প্রসঙ্গও টেনে আনেন৷ অন্যদিকে বর্তমানে রাজ্যের বিভিন্ন জেলার পুলিশ সুপাররা তৃণমূলের জেলা সভাপতির দায়িত্ব সামলাচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি৷

একই সঙ্গে তিনি জানিয়ে দেন লোকসভা ভোটে এ রাজ্য থেকে বিজেপি ১২টি আসন পাবে৷ এর মধ্যে উত্তরবঙ্গে আটটি আসন ও দক্ষিণবঙ্গে চারটি আসন পাবে৷ এ রাজ্যে লোকসভার ৪২টি আসন৷ ফলে বাকি ৩০টি রক্ষায় তৃণমূলকে কঠিন লড়াই করতে হবে বলেও তিনি এদিন দাবি করেন৷

এদিনের সভায় দিলীপ ঘোষ ছাড়াও রাজ্য কমিটির সাধারণ সম্পাদিক দেবশ্রী চৌধুরী, রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতি বিশ্বপ্রিয় রায়চৌধুরী, চিত্রাভিনেতা ও রাজ্য নেতা জয় বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন৷

আরও পড়ুন: বাংলা ঘুষের রাজত্বে পরিণত হয়েছে, তোপ রাহুল সিনহার

এদিনের সভায় তৃণমূল ছাত্র পরিষদের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার কার্যকরী সভাপতি উমাশঙ্কর রায় বিজেপিতে যোগদান করেন৷ তাঁর হাতে দলের পতাকা তুলে দেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ৷

আরও পড়ুন: অমিত শাহ-র সভা উপলক্ষে কি কংগ্রেস ভাঙছে? কানাঘুষো দলেই

Advertisement
---