জাকার্তা: ভল্টের ব্যক্তিগত ইভেন্টের ফাইনালে উঠতে পারেননি৷ ব্যালান্স বিমের চূড়ান্ত পর্বে লড়াই চালাবেন পদকের লক্ষ্যে৷ হাঁটুর চোটে কাবু দীপা কর্মকার ব্যক্তিগত ইভেন্টকে প্রাধান্য দিয়ে সরে দাঁড়ালেন টিম ইভেন্টের ফাইনাল থেকে৷

বুধবারই আর্টিস্টিক জিমন্যাস্টিক্সে মেয়েদের টিম ইভেন্টের ফাইনাল ছিল৷ শেষ মুহূর্তে দীপা সরে দাঁড়ানোয় ভারতীয় দল নিঃসন্দেহে দূর্বল হয়ে যায়৷ শেষমেশ তারা সাত নম্বরে থেকে ইভেন্ট শেষ করে৷

আরও পড়ুন: উত্তেজক শুট-অফ জিতে ভারতকে চতুর্থ সোনা রাহির

টিম ইভেন্ট থেকে নাম তুলে নেওয়া প্রসঙ্গে দীপার কোচ বিশ্বেশ্বর নন্দী বলেন, ‘দীপার হাঁটুর চোটটা বেশ গুরুতর৷ চোট নিয়ে টিম ইভেন্টের ভল্টে নামলে কেরিয়ার শেষ হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকত৷ এই চোটের জন্যই ব্যক্তিগত ভল্টে ও নিজের সেরাটা দিতে পারেনি৷ সব দিক বিচার করেই আমরা ওকে টিম ইভেন্ট থেকে বিশ্রাম দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, যাতে ও বিমের জন্য নিজেকে তৈরি করার বাড়তি সময় পায়৷’

চোট নিয়ে বিম ইভেন্টে নামাটা ঝুঁকির হবে কি না সে প্রসঙ্গে দীপার কোচের মত, ‘বিমে নামাটা তেমন একটা ঝুঁকির নয়৷ আসলে ব্যালান্সিং বিমে ল্যান্ডিংয়ে অতটা ঝাঁকুনি হয় না৷ তাই হাঁটুতে চাপ পড়ে কম৷’

আরও পড়ুন: অঙ্কিতার হাত ধরে টেনিসে পদক নিশ্চিত ভারতের

হাঁটুর গুরুতর চোট কেরিয়ার শেষ করে দিতে পারে বলে আপাতত প্রোদুনোভা থেকে আপাতত নিজেকে দূরে সরিয়ে রেখেছেন৷ অস্ত্রোপচারের পর খেলায় ফিরেছেন৷ এশিয়াডের মঞ্চেই প্রস্তুতির সময় পুনরায় পুরনো জায়গায় চোট পেয়েছেন বলে জানান দীপা৷ ভল্টের ফাইনালে উঠতে না পারার হতাশা স্পষ্ট ধরা পড়ে তাঁর কথায়৷ দীপা বলেন, ‘পোডিয়াম ট্রেনিংয়ের সময় হাঁটুতে ঝাঁকুনি অনুভব করছিলাম৷ তাই ভল্টে ভালো কিছু করে দেখাতে পারিনি৷ আমি এশিয়াডের আগে কঠোর অনুশীলনে নিজেকে তৈরি করেছিলাম৷’

আরও পড়ুন: এশিয়াডে ভারতের ঝুলিতে দশম পদক, কুস্তিতে ব্রোঞ্জ জয় দিব্যা’র

দীপার হতাসার ছবিটা আরও স্পষ্ট হয় তাঁর কোচের কথাতেই৷ বিশ্বেশ্বর জানান, ‘ইভেন্টের পর দীপা আমাকে বলে ভল্টই ওর পরিচয়৷ তাই লোকেরা কী ভাবছে তার এমন ব্যর্থতায়৷ আমি ওকে বলি, এতে ওর কোনও দোষ ছিল না৷ রাতে ও ডিনার করেনি৷ সকালেও খাবার ছোঁয়নি৷’

--
----
--