সামনে এল মাদকচক্রের সঙ্গে জড়িতের নাম

নয়াদিল্লি: মাদক চক্রের সঙ্গে জড়িত আইপিএস অফিসার সঞ্জীব ভাটকে গ্রেফতার করল সিআইডি৷ সূত্রের খবর, ১৯৯৮ সালের পালনপুর মাদকচক্র কান্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণেই তার বিরুদ্ধে জারি করা হয় গ্রেফতারি পরোয়ানা৷ ২০১৫ সালের আগস্ট মাসে ‘অননুমোদিত অনুপস্থিতির’ কারণে তাঁকে পদচ্যুত করে কেন্দ্রীয় স্বরাস্ট্র মন্ত্রক৷ শুধু তাই নয়, মামলায় জড়িত আরও সাত জন প্রাক্তন পুলিশকর্মীকে জেরা করার জন্য আটক করেছে সিআইডি৷

ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি) আধিকারিক আশিস ভাটিয়া বলেন, ‘ভাট সহ সাত জন প্রাক্তন পুলিশকর্মী বনসকথা পুলিশের কর্মী ছিল৷ তাদের সবাইকেই মামলাটির সঙ্গে যুক্ত থাকার কারণে আটক করা হয়েছে৷’ মাদকচক্রের সঙ্গে জড়িত অভিযোগে এক ব্যাক্তিকে গ্রেফতার করেছিল বনসকথা পুলিশ, যেটির এই ২২ বছর পুরনো মামলাটির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সংযোগ রয়েছে৷ ১৯৯৬ সালে বনসকথা জেলার পুলিশ সুপারইনটেনডেন্ট পদের দায়িত্বে ছিলেন ভাট৷

রির্পোটের তথ্য অনুসারে, সুমেরসিং রাজপুরোহিত নামের গ্রেফতার হওয়া ওই ব্যাক্তি পেশায় একজন আইনজীবি ছিলেন৷ নিজের কাছে অবৈধভাবে এক কেজি ড্রাগ রেখেছিলেন ওই আইনজীবি৷ সেকারণেই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ বনসকথা পুলিশ পালনপুর শহরের একটি হোটেলের রুম থেকে উদ্ধার করে এক কেজি মাদক৷ পুলিশের দাবি যেটির মালিকানা র দায়িত্বে ছিল রাজপুরোহিত৷

- Advertisement -

কিন্তু, রাজস্থান পুলিশের তদন্তে বদলে যায় ঘটনার মোড়৷ তথ্য জানাচ্ছে, ভুয়ো মামলাতে জড়ানো হয় রাজপুরোহিতকে৷ শুধু তাই নয়, রাজস্থানের পালির বাড়ি থেকে রাজপুরোহিতকে অপহরণ করে বনসকথা পুলিশকর্মীরা৷ চলতি বছরেই গুজরাত হাইকোর্ট মামলাটিকে সিআইডির কাছে হস্তান্তরিত করেন৷ রির্পোট জানাচ্ছে, ভাট সহ আরও সাতজনকে দফায় দফায় জেরা করা হচ্ছে৷

Advertisement
---