তিমিরকান্তি পতি, বাঁকুড়া: সম্প্রতি ভেঙে পড়েছে কলকাতার মাঝেরহাট সেতু। সেই খবর এখন সংবাদমাধ্যম আর সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে রীতিমতো ভাইরাল। একই সঙ্গে এই ঘটনার পর পরই শিলিগুড়িতে ভেঙে পড়েছে সেতু। সব মিলিয়ে এখন এই দুই ঘটনার পর সাধারণ মানুষের মধ্যে সেতু আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। এই আতঙ্কের তালিকা থেকে বাদ যায়নি বাঁকুড়াও। যদিও জেলা প্রশাসনের তরফে সংশ্লিষ্ট বিডিও এবং এসডিওদের সমস্ত সেতুর বিস্তারিত রিপোর্ট জমার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Advertisement

দক্ষিণ বাঁকুড়ার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সেতু রাইপুর সংলগ্ন কংসাবতী নদীর উপর গোবিন্দ প্রসাদ সিংহ সেতু। বাঁকুড়া-ঝাড়গ্রাম ন’নম্বর রাজ্য সড়কের উপর এই সেতুর একদিকে রয়েছে সারেঙ্গা ব্লকের চিলতোড় গ্রাম। অন্যদিকে রাইপুর বাজার। আজ থেকে প্রায় ৪২ বছর আগে ১৯৭৬ সালের ৬ জুন তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী এই সেতুর উদ্বোধন করেন। তারপর কংসাবতী দিয়ে অনেক জল গড়িয়ে গিয়েছে। রাজ্যে দুই দুবার শাসক পরিবর্তন হয়েছে। বেশ কয়েক জন মুখ্যমন্ত্রী পেয়েছে রাজ্য।

বাম আমলে এই রাইপুর বিধানসভার বিধায়ক রাজ্যের মন্ত্রী হয়েছেন। এই এলাকা থেকেই বাম আমলের শেষ দিকে জেলা পরিষদের সভাধিপতিও হয়েছিলেন। বর্তমানে রাইপুর বিধানসভার শাসক দলের বিধায়কও এই এলাকার। কিন্তু তারপরেও গুরুত্বপূর্ণ এই সেতুর সেভাবে কোন সংস্কার হয়নি বলে অভিযোগ। এই সেতুই বাঁকুড়া শহর এবং জেলার একটা বড় অংশের সঙ্গে ঝাড়গ্রাম ও পাশের রাজ্য ঝাড়খণ্ডের যোগাযোগের অন্যতম প্রধান মাধ্যম। প্রতিদিন হাজারো যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহন যাতায়াত করে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সংস্কারের অভাবে সেতুর পিলারে গজিয়ে উঠেছে অসংখ্য ছোট-বড় গাছ। যার ফলে সেতুর পিলারে ফাটল দেখা দিয়েছে। আবার কোথাও কোথাও প্লাস্টার ক্ষয়ে বেরিয়ে গিয়েছে লোহার রড। দিনের পর দিন তাতে রোদ-জল পেয়ে ধরছে মরচে। ফলে এই ধরণের ধারাবাহিক প্রশাসনিক উদাসীনতা চলতেই থাকলে আর একটা মাঝেরহাটের ঘটনার পুনরাবৃত্তি আর বেশী দূরে নয় বলেই মনে করছেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় বাসিন্দা বিকাশ নাগ বলেন, যে পরিমাণ বিভিন্ন ধরণের গাড়ি এই সেতু দিয়ে প্রতিদিন যাতায়াত করে৷ সেই তুলনায় রক্ষণাবেক্ষণের কাজ হয়নি। সেতুতে অসংখ্য ফাটল দেখা দিয়েছে অভিযোগ তুলে তিনি এই সেতুর দ্রুত সংস্কারের দাবি তোলেন।

এই বিষয়ে রাইপুর ব্লক প্রশাসনের এক আধিকারিক বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের নজরে এসেছে। জেলা প্রশাসনও নিয়মিত খোঁজ খবর নিচ্ছেন। বিস্তারিত রিপোর্ট তৈরি করে সংশ্লিষ্ট দফতরে জমা দেওয়া হচ্ছে। একই সঙ্গে তিনি আশা প্রকাশ করেন খুব শীঘ্রই এই সেতুর প্রয়োজনীয় সংস্কারের কাজ শুরু হবে।’

----
--