ভারতীয় ফুটবলের ভবিষ্যৎ নিয়ে আশাবাদী কিংবদন্তি ক্রিকেটার

বেঙ্গালুরু: ক্রিকেটার হিসাবে যতটা সফল, অনূর্ধ্ব-১৯ ও ভারতীয়-এ দলের কোচ হিসাবেও ততটাই গ্রহণযোগ্য৷ তবে রাহুল দ্রাবিড়ের ক্রীড়াপ্রেম শুধুমাত্র ক্রিকেটেই সীমাবদ্ধ, এমনটা ভাবার কোনও কারণ নেই৷ তাঁকে দেখা যায় জুনিয়র দাবার আসরে৷ কিংবদন্তি প্রকাশ পাড়ুকোনের সঙ্গে শহরের একাধিক ব্যাডমিন্টন ইভেন্টও ঘুরে আসেন সময় পেলেই৷ সম্প্রতি বেঙ্গালুরু এফসি-র ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসাবে আইএসএলের আঙিনাতেও ঢুকে পড়েছেন জ্যামি৷
জামসেদপুর এফসি-র বিরুদ্ধে সুনীল ছেত্রীদের ম্যাচ দেখতে কান্তারাভা স্টেডিয়ামে হাজির ছিলেন দ্রাবিড়৷ এই প্রথমবার আইএসএলের কোনও ম্যাচে গ্যালারিতে দেখা গেল রাহুলকে৷ শুরুতেই দলের হার দেখতে হলেও ম্যাচ শেষে ভারতীয় ফুটবলের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে আশাবাদী শোনাল ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল’কে৷

দ্রাবিড়কে মুগ্ধ করেছে ম্যাচের আবহ৷ শুধু মাঠের লড়াই নয়, সমর্থকদের উন্মাদনাও উপভোগ করেছেন তিনি৷ সব দেখেশুনে রাহুল বলেন, ‘দেখে ভাল লাগছে, প্রচুর তরুণ ফুটবলার বিভিন্ন অ্যাকাডেমি থেকে উঠে আসছে৷ অনেক ভারতীয় ফুটবলার আন্তর্জাতিক তারকাদের সঙ্গে সর্বোচ্চ পর্যায়ের পেশাদার ফুটবলে অংশ নিচ্ছে৷ এটা ভারতীয় ফুটবলের পক্ষে ইতিবাচক সংকেত৷ বেঙ্গালুরু এফসি-র পক্ষেও ভাল দিক এটা৷’

চেন্নাইয়ান এফসি ও জামসেদপুরের কাছে পর পর হারলেও বেঙ্গালুরু এফসি-র সাফল্য নিয়ে সংশয়ে নেই ‘দ্য ওয়াল’৷ হারটাকে সাময়িক ধাক্কা হিসাবে বর্ণনা করে দ্রাবিড় জানান, ‘কোনও সন্দেহ নেই যে, আইএসএল-এ আমরাই ফেভারিট এবং আমরাই লিগ জিততে চলেছি৷ শেষ ম্যাচে ছোটখাটো ধাক্কা লেগেছে বটে, তবে খেলায় এটা হয়৷ আমি নিশ্চত, আমরা ঘুরে দাঁড়াবই৷’

- Advertisement -

শেষে দ্রাবিড় বলেন, ‘বিএফসি-র সঙ্গে যুক্ত হতে পেরে ভাল লাগছে৷ যে রকম সমর্থন রয়েছে বিএফসি-র জন্য, সেটাই বুঝিয়ে দেয় শহরের মানুষের কাছে দলটার গুরুত্ব কতটা৷ এখানে এসে প্রথমবার কোনও ফুটবল ম্যাচ দেখার দারুণ অভিজ্ঞতা হল৷’

ক’দিন পরেই অনূর্ধ্ব-১৯ জাতীয় দলকে নিয়ে বিশ্বকাপ খেলতে নিউজিল্যান্ড উড়ে যাবেন রাহুল৷ তার আগে ন্যাশনাল ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে পৃথ্বী শ-দের নিয়ে প্রস্তুতি শিবির চালাচ্ছেন তিনি৷

Advertisement
---