মাঠে শৌচকর্ম বন্ধ করতে ব্যবহৃত হচ্ছে ড্রোন

যমুনানগর : মুখে বলে কাজ দিচ্ছিল না। কাজ দিচ্ছিল না যখন তখন হানা দিয়ে লজ্জাকর পরিস্থিতিতে ফেলেও। তাই মাঠে ঘাটে শৌচ কর্ম বন্ধ করতে নয়া উদ্যোগ নিয়েছে হরিয়ানা সরকার। বদ অভ্যাস শোধরাতে বদ্ধপরিকর হরিয়ানা সরকার ড্রোনের মাধ্যমে নজরদারি চালাবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ইতোমধ্যেই ভোর ৫টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত গ্রামের বাইরে থাকা মাঠগুলিতে নজরদারি চালাচ্ছে ড্রোনগুলি।

শনিবারই হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টার জানিয়েছেন, পাঁচকুলা এবং সিরসা জেলাগুলি এই অভ্যাসকে ত্যাগ করতে সক্ষম হয়েছে। এই তালিকায় শীঘ্রই যুক্ত হচ্ছে যমুনানগর জেলাও। তবুও বাকি থেকে যাচ্ছিল কিওছু অংশ। বাড়িতে শৌচালয় থাকা সত্ত্বেও উন্মুক্ত প্রান্তরে ছোটবার কুঅভ্যাস যাচ্ছিল না তাদের। সেই জন্যই এই ড্রোন ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেন তাঁরা। আপাতত পরীক্ষামূলকভাবে বিলাসপুর ব্লকের ৬টি গ্রামে এই নজরদারি চালানো হবে। পরীক্ষায় ভালো ফল মিললে সরকারের নিজস্ব ড্রোন কেনবার পরিকল্পনাও করেছে। রাজ্যে স্বচ্ছ ভারত অভিযানের অ্যাসিস্ট্যান্ট কো-অর্ডিনেটর ভূপেন্দ্র সিং বলেন, ‘আপাতত ৩ হাজার টাকা ভাড়ায় ড্রোন নেওয়া হয়েছে। ৭টি পঞ্চায়েত এলাকায় চলবে নজরদারি। শীঘ্রই উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে এর রিপোর্ট জমা দেওয়া হবে। তার পর ড্রোন কেনা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’ তিনি আরও যোগ করেন, ‘এই অঞ্চলে প্রায় দেড় লক্ষ বাড়ি রয়েছে। তার মধ্যে অধিকাংশ বাড়িতেই শৌচালয় রয়েছে। তার পরেও ড্রোনে ধরা পড়েছে, বহু গ্রামবাসীরা এখন খোলা জায়গায় শৌচকর্ম করছেন। তিনি বলেন, ‘যদি এই নজরদারির লজ্জায় গ্রামবাসীরা এই অভ্যাস ত্যাগ করেন, তবে সরকার নিজস্ব ড্রোন কিনবে।’

Advertisement ---
-----