প্রথম শ্রেণি থেকেই পাশ-ফেল প্রথা ফেরানোর দাবি ডিএসও’র

দিপালী সেন, কলকাতা: ফিরুক পাশ-ফেল প্রথা!
শিক্ষার অধিকার আইন, ২০০৯ এর সংশোধনী নিয়ে সন্তুষ্ট নয় ছাত্র সংগঠনগুলি৷ শুধু পঞ্চম ও অষ্টম নয়৷ প্রথম শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত সবস্তরেই পাশ-ফেল চালু করা হোক৷ এমনই দাবি নিয়ে প্রতিবাদে অব্যাহত ছাত্র সংগঠন ডেমোক্র্যাটিক স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন ( ডিএসও)৷

বহু প্রতিবাদ-আন্দোলনের পর অবশেষে আগামী জুলাই মাসের অধিবেশনে শিক্ষার অধিকার আইন, ২০০৯ এর সংশোধনী বিল পেশ করতে চলেছে কেন্দ্রীয় সরকার৷ সেই বিল পাশ হয়ে সংশোধনী আইনে পরিণত হলে পরের বছর অর্থাৎ, ২০১৯ সালের মার্চ থেকেই পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে বাধ্যতামূলকভাবে পাশ-ফেল প্রথা চালু হয়ে যাবে৷ শনিবার কলকাতায় এসে একটি সাংবাদিক বৈঠকে এমনই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মানব-সম্পদ উন্নয়ণমন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর৷

কিন্তু, শুধু পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে পাশ-ফেল চালু করা নিয়ে সন্তুষ্ট নয় ডিএসও৷ তাদের দাবি, কেন্দ্রীয় সরকারের উচিত ছিল বাধ্যতামূলকভাবে প্রথম শ্রেণি থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত সবস্তরেই পাশ-ফেলা প্রথা চালু করা৷

- Advertisement -

এই বিষয়ে ডিএসও’র রাজ্য সম্পাদক সৌরভ ঘোষ বলেন, ‘‘আমাদের দাবি ছিল, প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পাশ-ফেল প্রথা চালু করা হোক৷ এখনও আমাদের দাবি একই রয়েছে৷ আমরা মনে করি, পঞ্চম এবং অষ্টম শ্রেণিতে পাশ-ফেল চালু হলেও আন্দোলনের মূল দাবি পূরণ হচ্ছে না৷’’

তিনি আরও বলেন, ‘‘আমরা বলেছিলাম পরীক্ষা ব্যবস্থা না থাকলে, স্কুল শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে যাবে৷ সরকারি তথ্য অনুযায়ী, আমাদের বক্তব্যটাই সঠিক প্রমাণিত হচ্ছে৷ সব রাজ্যই তা স্বীকার করে নিচ্ছে৷’’ ডিএসও-র বক্তব্য, যদি পরীক্ষা ব্যবস্থা ফিরিয়েই আনতে হয়, তাহলে শুধু পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে কেন? সব স্তরেই পরীক্ষা ব্যবস্থা অর্থাৎ, পাশ-ফেল প্রথা ফিরিয়ে আনা দরকার৷ তাই তাদের দাবি যতদিন না পূরণ হচ্ছে, ততদিন তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন সৌরভ ঘোষ৷

যদিও, সংশোধনী আইন পাশ হয়ে গেলে রাজ্যগুলিকে পরীক্ষা ব্যবস্থার ক্ষেত্রে স্বাধীনতা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন প্রকাশ জাভড়েকর৷ ডিএসও-র রাজ্য সম্পাদক সৌরভ ঘোষ বলেন, ‘‘আমরা আশা করব, রাজ্যকে যে স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে সেটাকে কাজে লাগিয়ে রাজ্য সরকার সমস্তস্তরেই পাশ-ফেল প্রথা চালু করবে৷ যদিও, আমরা মনে করি, কেন্দ্রীয় সরকারেরই উচিত ছিল পঞ্চম থেকে অষ্টম পর্যন্ত সব শ্রেণিতেই পাশ-ফেল প্রথা চালু করা৷’’

যদিও আরএসএসে’র ছাত্র সংগঠন এবিভিপির বক্তব্য, ন্যাশনাল অ্যাচিভমেন্ট সার্ভের রিপোর্ট অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সরকার পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে পাশ-ফেল প্রথা চালু করছে৷ এবিভিপির রাজ্য সহ-সভাপতি ডা: ইন্দ্রনীল খান বলেন, ‘‘এনএএসে’র রিপোর্টে দেখা গিয়েছে পাশ-ফেল তুলে দেওয়ার ফলে পড়ুয়াদের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে৷ সেই ভিত্তিতেই পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণিতে এই প্রথা ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে৷ যেহেতু, বিভিন্ন রাজ্যের শিক্ষার পরিকাঠামো বিভিন্ন ধরনের তাই রাজ্য মনে করলে, সব শ্রেণিতেই পাশ-ফেল প্রথা ফিরিয়ে আনতে পারবে৷ সেটা রাজ্যের উপরই নির্ভর করছে৷’’

আবার পাশ-ফেল প্রথাকে সমর্থন বা বিরোধীতা কোনটাই না করে রাজ্যের সিদ্ধান্তকেই চূড়ান্ত বলে মনে করবে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ৷ টিএমসিপির রাজ্য সহ-সভাপতি মনিশংকর মণ্ডল বলেন, ‘‘এবিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় যে সিদ্ধান্ত নেবেন, সেটাই আমরা ছাত্র সংগঠনের পক্ষ গ্রহণ করব৷’’

Advertisement
-----