শোভন কোনও ফ্যাক্টরই নয় প্রমাণ করলেন শ্বশুরমশাই

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিরোধীদের যাবতীয় আশায় জল ঢেলে মহেশতলা উপনির্বাচনে সম্ভাব্য জয়ী তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী দুলাল দাস৷ মহেশতলা পুরসভার চেয়ারম্যানের পাশাপাশি দুলালবাবুর আরও একটা পরিচয় রয়েছে৷ সম্পর্কে তিনি কলকাতার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের শ্বশুর৷ শোভন-রত্নার বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা নিয়ে ক্রমশ জলঘোলা হওয়ার ঘটনা কারও অজানা নয়৷ বিরোধীদের আশা ছিল, শ্বশুর-জামাইয়ের পারিবারিক বিবাদের প্রভাব পড়বে ভোটে৷

কিন্তু বৃহস্পতিবার ১৭ রাউন্ড গণনা শেষে তৃণমূল প্রার্থী দুলালবাবু এগিয়ে রয়েছেন প্রায় ৫৫ বাজার ৫৮১ ভোটে৷ কমিশন সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই তাঁর প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা প্রায় ৯০ হাজার৷ দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন বিজেপির সুজিত ঘোষ৷ শেষ স্থানে রয়েছেন কংগ্রেস সমর্থিত বামফ্রন্ট প্রার্থী প্রভাত চৌধুরী৷ দুলালবাবু বলেন, ‘‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নে আস্থা রেখেই মানুষ তৃণমূলকে ভোট দিয়েছেন৷ এই জয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের৷ এই জয় রাজ্যবাসীর৷’’’ জামাই শোভন সম্পর্কে কোনও মন্তব্য করতে না চাইলেও তিনি বলেন, ‘‘আমার দায়িত্ব আরও বাড়ল৷ আরও বেশি করে মানুষের উন্নয়নের জন্য কাজ করব৷’’

শ্বশুরমশাইয়ের জয়ের বিষয়ে অবশ্য কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের৷ প্রসঙ্গত, মহেশতলা উপনির্বাচনের প্রচারে একবারের জন্যও দেখা যায়নি মেয়র শোভনবাবুকে৷ এমনকি নির্বাচনের মাঝেই তিনি স্ত্রী তথা দুলালবাবুর মেয়ে রত্না চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ ঠুকেছেন শোভন৷ ইতিমধ্যে তাঁদের বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা আদালতের চৌকাঠ পর্যন্ত গড়িয়েছে৷ স্বভাবতই পারিবারিক বিবাদকে কেন্দ্র করে দুলালবাবু এমনিতেই যথেষ্ট অস্বস্তিতে ছিলেন৷ তাই বিরোধীদের আশা ছিল, শ্বশুর-জামাইয়ের পারিবারিক বিবাদের প্রভাব পড়তে পারে উপনির্বাচনে৷ কিন্তু ফলাফলের নিরিখে স্পষ্ট, দাপুটে জামাই যে নির্বাচনে কোনও ফ্যাক্টরই নন ইতিমধ্যেই সম্ভাব্য জয়ের পথ প্রশস্ত করে তা প্রমাণ করে দিলেন শ্বশুরমশাই৷

Advertisement
---