অপ্রতিরোধ্য ডুডু৷

ইস্টবেঙ্গল- ৬ ( ডুডু হ্যাটট্রিক,র‍্যান্টি ৪৩’ ও ৭১’,বার্তোস ৭৭’) 

সাই-০

কলকাতা: বৃষ্টিস্নাত যুবভারতীতে লাল-হলুদ আবির ছড়িয়ে দিল আর্মান্দো কোলাসোর ছেলেরা৷ প্রথমার্ধেই চার গোল দিয়ে ম্যাচের ভাগ্য লিখে ফেলে ইস্টবেঙ্গল৷দ্বিতীয়ার্ধে আরও দু’গোল করে শেষ পর্যন্ত সাই-কে ছ’গোলের মালা পরাল কলকাতার ঐতিহ্যবাহী এই ক্লাব৷

খেলা শুরুর ১৫ মিনিটে ডুডুর জোড়ালো শট বিপক্ষের জালে বল জড়িয়ে দেয়৷ এক গোল দেওয়ার পর থেকেই লাল-হলুদের আক্রমণ ভাগের ঝাঁঝ বাড়তে শুরু করে৷ গোলের রেশ কাটতে না কাটতেই কর্নার পেয়ে যায় ইস্টবেঙ্গল৷ধনরাজনের বাড়ানো কর্নার থেকে দুর্দান্ত পাস বাড়ায় ডুডু৷ সেই পাস থেকেই দলের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করে ফেলেন র‍্যান্টি মার্টিন্স৷ ইস্টবেঙ্গলের ফুটবলাররা এদিন শুরু থেকেই সাই-এর ফুটবলারদের মাঠে দাঁত ফোটাতে দেননি৷ ২৬ মিনিটে আবারও গোল করেন ডুডু৷ খেলার আধঘণ্টার ভিতরেই স্কোরলাইন ৩-০৷ ইস্টবেঙ্গলের ‘কমপ্লিট ফুটবল’-এর সামনে রীতিমতো দিশাহীন হয়ে পড়ে সাই৷ তাদের রক্ষণে মুর্হমুর্হ আক্রমণের ঝড় তুলতে থাকে লাল-হলুদের ফুটবলাররা৷ ফলে ৪৩ মিনিটে আত্মঘাতীই গোল করে ফেলেন সাই-এর ফুটবলার৷বলটি শেষ পর্যন্ত র‍্যান্টির পায়ে লেগে যাওয়ায় গোলদাতা হিসাবে তাঁকেই ধরা হয়৷

ম্যাচের ৭১ মিনিটে ডুডু হ্যাটট্রিক করেন৷ এর ছ’মিনিট বাদেই লাল-হলুদ জার্সিতে প্রথম গোলটি করে ফেলেন লিও বার্তোস৷ এদিন পুরো ম্যাচেই ইস্টবেঙ্গলের জুনিয়র ব্রিগেড র‍্যান্টি-ডুডুদের পাশে সমান তালে খেলে গেল৷ ইস্টবেঙ্গলের সামনে এখন শুধু টালিগঞ্জ অগ্রগামী৷ তাদেরকে মঙ্গলবার হারাতে পারলেই পরপর পাঁচবার কলকাতা লিগ জেতার নজির গড়বে তারা৷ শনিবার প্রবল বর্ষণকে উপেক্ষা করেও যুবভারতীতে প্রিয় দলের সমর্থনে গলা ফাটাতে এসেছিলেন সমর্থকরা৷ কলকাতা লিগ জয়ের স্বপ্নে এখন বিভোর তাঁরা৷

 

 

 

----
--