মানসিক চাপ কমাতে অব্যর্থ ভূমিকা প্রাণায়ামের: রিপোর্ট

মানসিক চাপ কমাতে কত কী না করে থাকেন সবাই, ডাক্তার-বৈদ্য শল্য চিকিৎসা পর্যন্ত করে থাকেন অনেকেই৷ কেউ আবার অতিলৌকিক শক্তির প্রয়োগ করে অনেকে মনের চাপ মুক্ত হওয়ার চেষ্টা করেন।

এই সবকিছু বাদ দিয়ে মুঠো মুঠো ওষুধ না গিলে খুব সহজে নিজেদের রোজের ক্লান্তি, আর চাপ মুক্তির রাস্তা পেতে পারি আমরা৷ দেশীয় টোটকা আর কিছু নিয়ম নেহাত ফেলনা নয়। সেরকমই একটি উপায় হল, প্রাণায়াম।

সারাদিনের মানসিক ও শারীরিক চাপ মুক্ত হতে প্রাণায়াম খুবই উপকারি৷ এর সাথে যতটা না আধ্যাত্মিক বিষয় যুক্ত থাকে তার থেকে অনেক বেশী জড়িয়ে বিজ্ঞান৷ প্রাণায়ামের সঠিক নিয়ম যদি কেউ মেনে চলতে পারেন, তাহলে ওষুধের থেকেও অনেক বেশি উপযোগী হয়৷

- Advertisement -

এই প্রজন্মের সকলকে প্রতি মুহূর্তে মানসিক চাপের সম্মুখীন হতে হয়৷ কর্মক্ষেত্রে পরিশ্রম অনেক বেড়েছে, তাই সারাদিনের চাপ দূর করতে নিজেকে চিন্তামুক্ত করতে প্রাণায়ামের গুরুত্ব প্রচুর, বিশেষজ্ঞদেরও মত সেটাই।

ডঃ মধু কঠিয়ার মনে করেন, যান্ত্রিক দুনিয়ায় মানুষের রোগ থেকে প্রতিনিয়ত সিন্থেটিক ওষুধই সুস্থ রাখতে পারে না, গবেষণা বলছে প্রাণায়ামের থেকে বড় ওষুধ নেই৷ তাই মানুষকে স্ট্রেস মুক্তি দিতে পারে প্রানায়ানাম, যোগা আর কিছু লাইট মিউজিক।

গবেষণায় বলা হয়েছে এতে মানুষের মস্তিষ্কের ক্রিয়াকর্মের উপর সরাসরি প্রভাব পরে, চোখ আর কানের আরামের মধ্যে দিয়ে, কারণ চোখ আর কানের সরাসরি যোগ মস্তিষ্কের সাথে৷ তাই মধুর গান শোনা, প্রাণায়াম, যোগার দ্বারা ওষুধ ছাড়াই দূর হতে পারে মানসিক চাপ।

Advertisement ---
---
-----