ঈদের দিন কেরল থেকে ফিরল ছেলের নিথর দেহ

স্টাফ রিপোর্টার, কোচবিহার: কাজের সূত্রে ছেলে থাকত কেরলে৷ ঈদের দিন বাড়ি ফিরে আসার কথা ছিল৷ কিন্তু জলমগ্ন কেরল থেকে ফিরল ছেলের নিথর দেহ৷ কেরলে বন্যায় অসুস্থ হয়ে পড়েছিল কোচবিহারের মেখলিগঞ্জের কাশিমের হাটের বাসিন্দা সিরাজী ইসলাম৷ সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর৷

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, এম এ পাশ করে পরিবারের দুর্দশা ঘোচাতে পাড়ি দিয়েছিল ভিন রাজ্যে। পরিবারে আর্থিক স্বাচ্ছন্দ ফেরাতে দু বছর আগেই চাকরির আশা ছেড়ে কেরলে চলে গিয়েছিল রাজমিস্ত্রির কাজ করতে। বাবা পেশায় ভ্যান চালক৷

আরও পড়ুন: ইদ উপলক্ষ্যে সীমান্তে মিষ্টি বিনিময় বিএসএফ-পাক রেঞ্জার্সের

মা অন্যের বাড়িতে কাজ করে। ছেলের মৃত্যুর সংবাদে বাকরুদ্ধ তাঁরা। কেরলে কিছুদিন ধরে জ্বরে ভুগছিল সিরাজী৷ কিন্তু বন্যার কারণে কোন হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা করাতে পারেনি তিনি। এরপর গত ১৪ অগস্ট জ্বরে মৃত্যু হয় তাঁর। ১৮ অগস্ট সিরাজীর মৃত্যু খবর পরিবার জানতে পারে৷ তাঁর মৃত্যুতে শোকোস্তব্ধ গোটা গ্রাম ও তাঁর পরিবার৷

পরিবারের দাবি, সরকারি তরফে কোনরকম ত্রাণ পায়নি সিরাজী। মা এলেজা বিবি জানান, ছেলে ঈদে বাড়িতে আসবে বলেছিল৷ কিন্তু ঈদের দিন ভোরে এল তার কফিন বন্দি দেহ। সিরাজী তাঁর বাবাকে বলেছিল ভাঙ্গা ঘর থেকে পাকা বাড়ি বানিয়ে দেবে৷

আরও পড়ুন: মদ বিক্রির প্রতিবাদ করায় ছেলের হাতে আক্রান্ত মা

রোজগারের টাকায় সংসারে স্বাচ্ছন্দ নিয়ে আসবে সে। এম এ পাশ করে কোন চাকরি পায়নি এই রাজ্যে৷ তাই সংসারের হাল ফেরাতে কেরলে গিয়েছিল সিরাজী৷

----
-----