অস্থায়ী কর্মীদের স্থায়ী করে বেতন বাড়ানোর ঘোষণা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

ফাইল ছবি

কলকাতাঃ   অস্থায়ী কর্মীদের পাকা করল মমতা সরকার! সেচ দফতরে দীর্ঘদিন ধরে কর্মরত বেশ কয়েকজন অস্থায়ী কর্মীদের চাকরি পাকা করার ব্যবস্থা করল সরকার। একই সঙ্গে বেতনও বৃদ্ধি করা হচ্ছে তাঁদের। চুক্তিতে নিযুক্ত, ক্যাজুয়াল, দৈনিক মজুরিতে কাজ করা কয়েক হাজার অস্থায়ী কর্মী এতে উপকৃত হবেন। সেচ দপ্তর ইতিমধ্যে এব্যাপারে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে। সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশির হাওয়া কর্মচারীদের মধ্যে।

বাংলা এক দৈনিকে প্রকাশীত খবর মোতাবেক, ২০১৬ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি অর্থ দফতর থেকে কর্মরত অস্থায়ী কর্মীদের চাকরি পাকা করার নির্দেশিকা জারি করা হয়। সেটি এবার নিজেদের দফতরে কার্যকর করার জন্য সেচ দফতর গত ১৩ ফেব্রুয়ারি নির্দেশিকা জারি করেছে। প্রসঙ্গত, সেচ দফতর সহ সরকারের ইঞ্জিনিয়ারিং দফতরগুলিতে এধরনের অস্থায়ী কর্মীর সংখ্যা বেশি। বাম আমল থেকে তৃণমূল সরকারের সময়ে প্রচুর সংখ্যক অস্থায়ী কর্মী নিয়োগ করা হয়েছে সরকারি অফিসে। চাকরি পাকা হওয়ায় তাঁদের অনিশ্চয়তা দূর হল।

চাকরি পাকা হওয়ার নয়া নীতি নিয়েছে সরকার। সেই নীতি মোতাবেক, কর্মী কতদিন ধরে কাজ করছেন, তার উপর বেতন নির্ভর করবে। গ্রুপ ডি-তে একজন অস্থায়ী কর্মী পাঁচ বছরের কম কাজ করলে মাসে ১০ হাজার টাকা বেতন পাবেন। পাঁচ থেকে দশ বছর কাজ করলে ১২ হাজার টাকা, ১০-১৫ বছর কাজ করলে ১৪ হাজার ৫০০ টাকা, ২০ বছর পর্যন্ত কাজ করলে ১৭ হাজার টাকা ও ২০ বছরের বেশি কাজ করলে ২০ হাজার টাকা বেতন পাবেন। গ্রুপ সি’র ক্ষেত্রে কাজের একই সময়সীমা অনুযায়ী বেতন ১১ হাজার ৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২২ হাজার ৫০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এই নির্দেশিকা জারির আগে গ্রুপ ডি-তে অস্থায়ী কর্মীদের বেতন সাত থেকে সাড়ে আট হাজার টাকা ছিল। গ্রুপ সি’র ক্ষেত্রে বেতন ছিল সাড়ে ৮ হাজার থেকে ১১ হাজার টাকা। অর্থ দপ্তরের নির্দেশিকায় অস্থায়ী কর্মীদের জন্য বছরে তিন শতাংশ হারে বেতন বৃদ্ধির কথা বলা হয়েছে। স্থায়ী কর্মীদের বাৎসরিক বেতন বৃদ্ধি একই হারে হয়। ৬০ বছর বয়সে অবসর নেওয়ার পর এককালীন দু’লক্ষ টাকা আর্থিক অনুদান দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। অস্থায়ী কর্মীদের পরিবার সহ স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের আওতায় এনেছে সরকার। এই প্রকল্পে নথিভুক্ত বেসরকারি হাসপাতালে দেড় লক্ষ থেকে পাঁচ লক্ষ টাকার ক্যাশলেস চিকিৎসা পরিষেবা মেলে, খবর বাংলা দৈনিক সূত্রে।

----
-----