যাদবপুরে প্রবেশিকা ঘিরে গণ্ডোগোল, নজর রাখছে সরকার: শিক্ষামন্ত্রী

ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: যাদবপুরের ভরতি প্রক্রিয়া নিয়ে ফের অসন্তোষ প্রকাশ করলেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়৷ প্রবেশিকার ফলাফলের পরও কেন এত অভিযোগ উঠছে তা নিয়ে এদিন সরব হন তিনি৷ সম্পূর্ণ বিষয়টি শিক্ষা দফতরের নজরে আছে বলে এদিন জানান শিক্ষামন্ত্রী৷ তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক বৈঠকে কিছুটা হুঁসিয়ারির সুরেই তিনি বলেন, ‘‘প্রবেশিকা নিয়ে কেউ সরকারের কাছে অভিযোগ জানালে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবো৷ বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করবো৷’’

যাবদবপুরের ভরতি প্রক্রিয়া ঘিরে প্রথম থেকেই বিবাদ চরমে ওঠে৷ একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভরতি প্রক্রিয়া একরকম হওয়া উচিত বলে জানায় সরকার৷ সেক্ষেত্রে কলা বিভাগে প্রবেশিকা উঠিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের মেধার ভিত্তিতে পড়ুয়াদের ভরতি নেওয়ার পক্ষে ছিল সরকার৷ কিন্তু কলা বিভাগের শিক্ষক, শিক্ষিকা ও পড়ুয়াদের একাংশ সরকারি সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করে আন্দোলনে সামিল হয়৷ সরকারি সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধিকারে সরকারে হস্তক্ষেপ বলে দাবি করে তারা৷ পরে প্রবেশিকা পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বর ও উচ্চ মাধ্যমিকে প্রাপ্ত নম্বরেরের ভিত্তিতে পড়ুয়াদের ভরতি করা হবে বলে সিদ্ধান্ত হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসি কমিটির বৈঠকে৷ কিন্তু তাতেও সমস্যার সমাধান হয়নি৷

এক ছাত্রী রেজিস্ট্রারের কাছে অভিযোগ করেন যে, তিনি উচ্চ মাধ্যমিকে ইংরাজিতে যে নম্বর পেয়েছিলেন মেধাতালিকায় তার থেকে কম নম্বরের উল্লেখ রয়েছে৷ এই ভুলের কারণে মেধাতালিকায় ৬০-র জায়গায় তার ব়্যাঙ্ক হয় ১১০৷ এতেই শেষ নয়৷ ইতিহাসের মেধাতালিকাকে ঘিরেও দেখা দেয় বিতর্ক৷ দেখা যায়, উচ্চ মাধ্যমিকে ৯৫ শতাংশের মতো নম্বর পাওয়া পড়ুয়ারা প্রবেশিকা পরীক্ষায় ১০-এরও কম নম্বর পেয়েছেন৷ ২১৬ জনের মেধাতালিকায় ১২০ জন এই সমস্যার সম্মুখীন হন৷ ভুক্তভুগীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের দারস্থ হন৷

- Advertisement -

এইসব অভিযোগ নিয়েই সরব হন শিক্ষামন্ত্রী৷ তিনি বলেন, ‘‘এখন দেখছি যারা প্রবেশিকা দিয়েছে তারাই অসন্তুষ্ট৷ মেধাবীদর সুযোগ দিতে হবে৷’’ ইতিহাস বিভাগের মেধা তালিকায় এক পড়ুয়ার নম্বর গণ্ডোগোল ঘিরে প্রশ্ন তুলে তিনি জানান ‘‘আমার আশঙ্কাই সত্যি হয়েছে৷’’

প্রবেশিকা ঘিরে বেনিয়মের অভিযোগ তোলেন শিক্ষামন্ত্রী৷ গোটা প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতার ধরা পড়েছে বলে মনে করেন তিনি৷ একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভরতির এক পদ্ধতির দাবি তোলেন তিনি৷ ভুক্তভুগীরা শিক্ষা দফতরে অভিযোগ জানালে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলা হবে বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী৷

সরকারের সিদ্ধান্ত বিশ্ববিদ্যায়ের স্বাধীকারে হস্তক্ষেপ বলে অভিযোগ ছিল বহু শিক্ষাবিদ থেকে আন্দোলনকারি পড়ুয়াদের৷ প্রবেশিকা ঘিরে বেনিয়ম প্রকাশ্যে আসার সেইসব অভিযোগকারিদের শিক্ষামন্ত্রীর প্রশ্ন ‘‘স্বাধীকারের প্রশ্নে এখনও কী তাঁরা আগের অবস্থানেই অটুট থাকবেন?’’

Advertisement
---