বিশ্বজিৎ ঘোষ, কলকাতা: দেশে তো বটেই৷ সম্ভবত, বিশ্বেও নজির গড়ল দুর্বার৷ কারণ, জাতীয় স্তরে অনূর্ধ্ব ১৩ এবং ১৫ বছর বয়সিদের ফুটবলে এই প্রথম সুযোগ পেল দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমি৷

পশ্চিমবঙ্গের যৌনকর্মীদের সংগঠন দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির অধীনে রয়েছে এই স্পোর্টস অ্যাকাডেমি৷ এই অ্যাকাডেমিতে যেমন যৌনকর্মীদের সন্তানরা রয়েছে৷ তেমনই, নাচনি, শবর, মুন্ডা সহ সমাজের বিভিন্ন প্রান্তিক অংশের ছেলেরাও রয়েছে৷ আই লিগের অনূর্ধ্ব ১৩ এবং অনূর্ধ্ব ১৫, এই দুই টুর্নামেন্টেই এ বারই প্রথম দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমির পৃথক দুই দল অংশ নিচ্ছে৷

Advertisement

চার বছরের প্রচেষ্টায় এমন সাফল্যের দেখা মিলল বলে জানিয়েছেন দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমির সচিব বিশ্বজিৎ মজুমদার৷ তাঁর কথায়, যৌনকর্মী এবং সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষের সন্তানদের নিয়ে আমাদের ফুটবল দল৷ এমন দল এ বছর আই লিগের অনূর্ধ্ব ১৩ এবং অনূর্ধ্ব ১৫-তে খেলবে৷ এমন নজির দেশে নেই৷ সম্ভবত বিশ্বের কোথাও নেই৷’’ একই সঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের অ্যাকাডেমির সভাপতি এবং দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির মুখ্য উপদেষ্টা ডাক্তার স্মরজিৎ জানার স্বপ্ন ছিল আমাদের টিম একদিন জাতীয় স্তরে খেলবে৷ শেষ পর্যন্ত আমরা সফল হলাম৷’’

বিশ্বজিৎ মজুমদার বলেন, ‘‘আই লিগের অনূর্ধ্ব ১৩ এবং অনূর্ধ্ব ১৫-তে দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমির পৃথক দুই দল এ বার সুযোগ পেল, এ কথা বৃহস্পতিবার, সাত জুন অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন আমাদের জানিয়েছে৷ এআইএফএফ জানিয়েছে, আমরা ১৩৫ পয়েন্ট পেয়েছি৷ স্টার ওয়ান গ্রেড দেওয়া হয়েছে আমাদের৷ অনূর্ধ্ব ১৩ এবং অনূর্ধ্ব ১৫-র জন্য ৩০ জন করে মোট ৬০ জন খেলোয়াড় রয়েছে আমাদের৷’’

স্বাভাবিক কারণেই, এমন নজিরের জেরে দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমির অনূর্ধ্ব ১৩-র কোচ আর্য বসুরায়, বিশ্বজিৎ মজুমদার এবং অনূর্ধ্ব ১৫-র কোচ ইন্দ্রজিৎ মিত্র, দীপক রায় সহ দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটিতে এখন খুশির হাওয়া৷ আই লিগের অনূর্ধ্ব ১৩ এবং অনূর্ধ্ব ১৫-তে এ বার যাতে দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমি জায়গা করে নিতে পারে, তার জন্য গত কয়েক বছরের খামতিগুলি পূরণের চেষ্টা হয়েছিল৷ এবং, তার জেরেই এমন সাফল্য বলেই জানানো হয়েছে৷ পরের লক্ষ্য? দুর্বার স্পোর্টস অ্যাকাডেমির সচিব বলেন, ‘‘আমাদের এর পরের লক্ষ্য আই লিগের অনূর্ধ্ব ১৮৷’’

----
--