মুম্বই: ১৯৮৩ সালের জুন মাসে প্রথমবারের জন্য ক্রিকেট বিশ্বকাপ জেতার স্বাদ পেয়েছিল ভারত। কপিল দেবের সেই অবাক জয়ে যখন দেশবাসী মগ্ন ঠিক সেই সময়েই নিজের স্বপ্নের সন্ধানে বাড়ি ছেড়েছিলেন এক তরুণী। তিন দশক পেরিয়ে গেলেও এখনও তাঁর কোনও খোঁজ মেলেনি। দীর্ঘ ৩৩ বছর পর তাঁর খোঁজে বিজ্ঞাপন দিল পরিবার।

নিখোঁজ ব্যক্তির নাম মীনাক্ষী, ওরফে মিনা। ১৯৮৩ সালের নভেম্বর মাসের পাঁচ তারিখে নিজের স্বপ্ন পূরণের উদ্দেশ্যে তিনি পাড়ি দিয়েছিলেন বাণিজ্য নগরী মুম্বইতে। জীবনের মাত্র এক কুড়ি বছর পার করা মিনার চোখে তখন অভিনেত্রী হওয়ার একরাশ স্বপ্ন। বেঙ্গালুরুর বাসিন্দা মিনা স্থানীয় ছবিতে কাজ করেছিলেন। জীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার লক্ষ্যে একধিকবার বাড়ি ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন তিনি। পরে ফিরেও এসেছিলেন। মিনার সুমতি ফেরাতে একাধিকবার কাউন্সেলিং করানোও হয়েছিল। কিন্তু, কাজের কাজ কিছুই হয়নি। গ্ল্যামার জগতের হাতছানিতে ফের বাড়ি ছেড়ে মুম্বই(তৎকালীন বোম্বাই) পারি দেয় মিনা।

বাড়ির লোকেরা ভেবেছিলেন স্বপ্নের ঘোর কাটলে বাড়ি ফিরবে মিনা। কিন্তু, তা আর হয়নি। বাড়ি ছাড়ার ৩৩ বছর পেরিয়ে গেলেও বাড়ি আসেনি মিনা। যদিও পরিবারের লোকেদের বিশ্বাস ছিল যে একদিন নিশ্চয় ঘরে ফিরবে ঘরের মেয়ে। সেই আশায় করা থানায় নিখোঁজ ডায়েরিও করা হয়নি। তাহলে এখন হঠাৎ বিজ্ঞাপন কেন? এই প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন নিখোঁজ মীনাক্ষীর ভাগ্নে গুরুপ্রসাদ। তাঁর কথায়, “সম্প্রতি এক প্রতিবেশী মিনার মত একজনকে মুম্বইতে দেখেছেন। সেই থেকেই আমাদের আশা আরও জোরালো হয়। সেই কারণেই সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়।” একইসঙ্গে তাঁর আরও সংযোজন, “আমার মা এখনও বিশ্বাস করেন যে মাসি(মিনা) ফিরে আসবেন। এটাকে আপনারা অন্ধবিশ্বাস বলতেই পারেন।” মুম্বই একটা বিরাট বড় শহর, তাই শুধুমাত্র একবার নয়। নিখোঁজ মিনার খোঁজে আরও বেশ কয়েকবার বিজ্ঞাপন দেওয়ার কথা ভাবছে গুরুপ্রসাদবাবুর পরিবার।

#An offbeat news which holds lot of importance with its human angle. It is about a girl who was lost 3 decades ago. The family looks for her.

----
--