কিডনি বিক্রি করে ঋণশোধ চাষির

স্টাফ রিপোর্টার, তমলুক: প্রতারণা চক্রের পড়ে কিডনি খোয়াতে হলে ঋণে জর্জরিত এক যুবককে। ঘটনাটি ঘটেছে এগরার বর্ত্তনা গ্ৰামে৷ নিমাই মাইতির পেশায় একজন পান চাষি৷

দেখুন ভিডিও:

তাঁর কিডনি বিক্রির খবরে শোরগোল পড়ে গেল পূর্ব মেদিনীপুর জেলা জুড়ে। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে এখনও পর্যন্ত দু’জনকে গ্রেফতার করেছে এগরা থানার পুলিশ।

আরও পড়ুন: ফের দমদম বিমান বন্দরে সোনা উদ্ধার, ধৃত মহিলা

নিমাইয়ের স্ত্রী সন্ধ্যা মাইতি মোট ৪২ জনের নামে এগরা থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন৷ এগরা থানার ওসি কৃষ্ণেন্দু প্রধান বলেন, ‘‘অভিযোগ পেয়ে তদন্তে নেমে বেআইনিভাবে লক্ষ লক্ষ টাকা খোলা হাতে লেনদেন করার অপরাধে এখন পর্যন্ত দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তল্লাশি চলছে বাকিদের খোঁজে।’’

৪২টি ভূইঁফোড় সংস্থার হয়ে কৃষি উন্নয়ন সমিতি ও কৃষক কল্যাণ সমিতি এগরার বিভিন্ন এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে রমরমিয়ে চলছিল৷ এই সংস্থার কাজ মূলত গ্রামের অশিক্ষিত ও গরিব মানুষদের নিয়ে কাজ৷ মানুষের অসহায়তার সুযোগ নিয়ে তাঁদেরকে টাকা ঋন দেয়। কৃষক কল্যাণ নামে চলে মহাজনি সুদের কারবার।

আরও পড়ুন: HIV আক্রান্ত রোগী ফিরিয়ে দিল রায়গঞ্জ হাসপাতাল

এই সংস্থার শিকার হয় এগরার বর্ত্তনা গ্ৰামের বাসিন্দা পেশায় পান চাষি নিমাই মাইতিও৷ পানের বরোজ করার জন্য এমনই কয়েকটা সমিতি থেকে প্রায় দু’লক্ষ টাকা ধার নিয়েছিলেন। সুদ ও আসল মিলিয়ে টাকার বর্তমানে ঋণের অঙ্ক বেড়ে দাঁড়িয়েছে সাড়ে ৩ লক্ষ টাকা।

যা পরিশোধের জন্য সমিতির কর্মকর্তারা নিমাইয়ের ওপর চাপ ক্রমশ বেড়েই চলেছিল৷ তাদের চাপে পড়ে ঋন শোধ করতে নিজের কিডনি বিক্রি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন নিমাই। শেষমেষ কিডনি বিক্রি করে ঋণের টাকাও শোধ করেন তিনি। নিমাইয়ের দেখানো পথে এখন পা বাড়িয়েছেন ঋণগ্রস্ত আরও কয়েকজন কৃষকও।

আরও পড়ুন: স্বামীর ছবি হাতে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরছেন স্ত্রী

রেজিস্ট্রেশনবিহীন এই সমিতিগুলো গরিব মানুষের টাকা আত্মসাৎ করছে বলে স্বীকার করে নিয়েছেন এলাকার পঞ্চায়েত প্রধান সিদ্ধেশ্বর বেরা। ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে পুলিশকে ব্যবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছেন এগরা ১ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি অমিয় রাজ। জেলাশাসক রশ্মি কমল জানিয়েছেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছ।

Advertisement
----
-----