ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো (পর্তুগাল, স্ট্রাইকার)
জন্ম: ৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮৫ (৩৩ বছর)
উচ্চতা: ৬ ফুট ১ ইঞ্চি
ক্লাব: রিয়াল মাদ্রিদ
জার্সি নম্বর:

ক্লাব কেরিয়ার: ১৯৯৯-২০০২ পর্যন্ত আন্দোরিনহা, ন্যশনাল ও স্পোর্টিং লিসবনের যুব দলে ফুটবলে খেলেছেন রোনাল্ডো৷ ২০০২-০৩ স্পোর্টিংয়ের ‘বি’ দল ও সিনিয়র দলের হয়ে মোট ২৭টি ম্যাচে ৩টি গোল করেন তিনি৷ ২০০৩-০৯ ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডের হয়ে ১৯৬ ম্যাচে ৮৪টি গোল করেন ক্রিশ্চিয়ানো৷ ২০০৯ সালে রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দেওয়ার পর সিআর সেভেন নিজেকে তুলে ধরেন অন্য মাত্রায়৷ রিয়ালে এপর্যন্ত ২৯২ ম্যাচে ৩১১ গোল করেন তিনি৷

আন্তর্জাতিক কেরিয়ার: ২০০১-২০০৪ পর্তুগালের বয়সভিত্তিক জাতীয় দলের হয়ে চুটিয়ে ফুটবল খেলেছেন রোনাল্ডো৷ অনূর্ধ্ব-১৫ দলের হয়ে ৯ ম্যাচে ৭টি, অনূর্ধ্ব-১৭ দলের হয়ে ৭ ম্যাচে ৫টি, অনূর্ধ্ব-২০ দলের হয়ে ৫ ম্যাচে ১টি, অনূর্ধ্ব-২১ দলের হয়ে ১০ ম্যাচে ৩টি ও অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে ৩ ম্যাচে ২টি গোল করে ক্রিশ্চিয়ানো৷

২০০৩ থেকে ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের আগে পর্যন্ত পর্তুগালের সিনিয়র দলের হয়ে ১৫০ ম্যাচে ৮১টি গোল করেছেন সিআর সেভেন৷

ফিফা টুর্নামেন্ট: ২০০৪ এথেন্স অলিম্পিকে ইরাকের বিরুদ্ধে পর্তুগালের ম্যাচ দিয়ে ফিফা টুর্নামেন্টে আত্মপ্রকাশ রোনাল্ডোর৷ ম্যাচটি ২-৪ গোলে হেরে যায় পর্তুগীজরা৷ এ পর্যন্ত ফিফা ইভেন্টের ৬৫ ম্যাচে মাঠে নেমে ৪৩টি গোল করেছেন ক্রিশ্চিয়ানো৷ রোনাল্ডোর উপস্থিতিতে ৪৩টি ফিফা ম্যাচে জয় তুলে নিয়েছে পর্তুগাল৷ ১৬টি ম্যাচ ড্র করেছে৷ হেরেছে ৬টি ম্যাচে৷

ফিফা ওয়ার্ল্ড কাপ (২০০৬, ২০১০ ও ২০১৪): ১৩ ম্যাচে ৩ গোল৷ জয়-৫, ড্র-৪, হার-৪
ওয়ার্ল্ড কাপ কোয়ালিফায়ার: ৩৮ ম্যাচে ৩০ গোল৷ জয়-২৭, ড্র-১০, হার-১
ফিফা কনফেডারেশন কাপ (২০১৭): ৪ ম্যাচে ২ গোল৷ জয়-২, ড্র-২, হার-০
ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপ (২০০৮, ২০১৪, ২০১৬, ২০১৭): ৮ ম্যাচে ৭ গোল৷ জয়-৮, ড্র-০, হার-০
অলিম্পিক (২০০৪): ২ ম্যাচে ১ গোল৷ জয়-১, ড্র-০, হার-১

পুরস্কার: ২০০৮ সালে ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলারের পুরস্কার হাতে তোলেন রোনাল্ডো৷ ওই বছরই ফিফা ওয়ার্ল্ড প্লেয়ার গালায় ‘ফ্রান্স ফুটবল ব্যালন ডি’অর’ জেতেন তিনি৷ ২০১৩ ও ২০১৪ ফিফা ব্যালন ডি’অর হাতে ওঠে পর্তুগীজ তারকার৷ ২০১৬ ও ২০১৭ সালে দু’বার ব্যালন ডি’অর জিতলেও তা ফিফা পুরস্কার হিসাবে গণ্য হবে না৷ যে চারবার (২০০৮, ২০১৪, ২০১৬, ২০১৭) ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপে অংশ নিয়েছেন রোনাল্ডো, প্রতিবারই চ্যাম্পিয়ন দলের সদস্য ছিলেন তিনি৷

এছাড়া ২০০৯ সালে পুসকাস অ্যওয়ার্ড জিতেছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো৷ ২০১৬ সালে ফিফা ক্লাব ওয়ার্ল্ড কাপে অ্যাডিডাস গোল্ডেন বলের দখল নেন সিআর সেভেন৷

----
--