ফ্লু সেরে যায় কিন্তু মানসিক রোগ নয়: বিজেপি

নয়াদিল্লি: কর্ণাটকে সরকার গড়তে পারেনি বলে প্যানিক অ্যাটাক থেকে ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছেন অমিত শাহ৷ বৃহস্পতিবার কংগ্রেস সাংসদ বিকে হরিপ্রসাদের এই মন্তব্যের পর ঝড় ওঠে বিজেপি শিবিরে৷ তাবড় তাবড় বিজেপি নেতারা হরিপ্রসাদের মন্তব্যের নিন্দা করেন৷ তিনি মানসিক রোগে ভুগছেন বলেও তোপ দাগেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পীযূষ গোয়েল৷ শ্লেষের ভঙ্গিতে বলেন, ‘‘ফ্লু তো সেরে যায়৷ কিন্তু মানসিক রোগ কখনও সারে না৷’’

পীযূষ গোয়েল বলেন, ‘‘অমিত শাহের অসুস্থতা নিয়ে কংগ্রেস সাংসদ বিকে হরিপ্রসাদের মন্তব্য খুবই কুরুচিপূর্ণ৷ কংগ্রেস দলটির মান কোথায় নেমে গিয়েছে তা এই মন্তব্যে পরিস্কার৷ ফ্লু সেরে যায়৷ কিন্তু কংগ্রেস নেতার মানসিক রোগ সারিয়ে তোলা কঠিন৷’’ শুধু পীযূষ গোয়েল নন কংগ্রেস নেতার বিরোধীতায় মুখ খুলেছেন রাজ্যবর্ধন রাঠোর এবং মুখতার আব্বাস নাকভির মতো নেতারাও৷

- Advertisement -

তোপ দেগে মুখতার আব্বাস নাকভি জানান, কোনও মানুষের অসুস্থতা নিয়ে কটাক্ষ করা মানসিক সুস্থতার লক্ষণ নয়৷ অত্যন্ত নিন্দনীয় মন্তব্য করেছেন কংগ্রেস সাংসদ৷ রাজ্যবর্ধন রাঠোর জানান, তিনি কংগ্রেস নেতার আচরণে অবাক হননি৷ এটাই এখন কংগ্রেসের ট্র্যাডিশন৷ এমন মন্তব্যের মাধ্যমে তাদের হতাশা প্রকাশ পায়৷ শাহনওয়াজ হুসেনও হরিপ্রসাদের মন্তব্যকে নিন্দনীয় ও লজ্জাজনক বলে মন্তব্য করেছেন৷

বুধবার রাতের দিকে দিল্লির এইমস হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে নরেন্দ্র মোদীর দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত সেনাপতি অমিত শাহকে। সোয়াইন ফ্লু-তে আক্রান্ত হয়েছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। নিজের অসুস্থতার কথা অমিত শাহ নিজেই সকলকে জানিয়েছেন। বুধবার রাতের দিকে ট্যুইটারে তিনি লেখেন, “আমি সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছি, চিকিৎসা চলছে।” পাশাপাশি তিনি আরও লেখেন, “ঈশ্বরের কৃপায় এবং আপনাদের সকলের আশির্বাদে খুব শীঘ্রই সুস্থ হয়ে উঠব।”

এরপর কংগ্রেস নেতা বি কে হরিপ্রসাদের কটাক্ষ, কর্ণাটকে সরকার গড়তে গিয়ে মুখ পুড়েছে বিজেপির৷ কংগ্রেস বিধায়করা ফিরে আসায় প্যানিকে ভোগা শুরু করেছেন অমিত শাহ৷ কংগ্রেস-জেডি(এস) সরকার ফেলতে না পারলে তাঁর বমি ও আমাশয় শুরু হয়ে যাবে৷ তাই এখন ‘শুয়োরের রোগে’ ভুগছেন৷