মস্কো: গ্রুপ লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচ গোল শূন্য ড্র করল ফ্রান্স-ডেনমার্ক৷ দুটি ম্যাচ জয় এবং একটি ড্র করে বিশ্বকাপের নক-আউট পর্বে পা রাখল ফ্রান্স৷‘সি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন দল হিসেবে শেষ ষোলোয় উঠল ফরাসিরা৷ একই গ্রুপের রানার্সআপ দল হিসেবে শেষ ষোলোয় তাদের সঙ্গী হয়েছে ডেনমার্ক৷

রাশিয়া বিশ্বকাপের ৩৮তম ম্যাচ প্রথম গোলশূন্য ড্র দেখল এই বিশ্বকাপ৷ ৩ ম্যাচে ২ জয় ও ১ ড্র তুলে নেওয়া ফরাসিদের সংগ্রহ ৭ পয়েন্ট৷ ৫ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় ডেনমার্ক এই গ্রুপের রানার্সআপ দল৷ অস্ট্রেলিয়া(১-২) এবং পেরুকে(০-১) হারিয়ে শেষ ষোলো আগেই নিশ্চিত করেছিল ফ্রান্স৷ ডেনমার্কের সঙ্গে ম্যাচ জিততে পারলে হ্যাটট্রিক জয়ে নক-আউটে যাওয়ার সুযোগ ছিল দলটির কাছে৷ ডেনমার্কের সঙ্গে গোল শূন্য ড্র করায় সে সুযোগ হাতছাড়া হল গ্রিজম্যানদের৷

কোচ দিদিয়ের দেশঁ দলে ৬টি পরিবর্তন এনে নিয়ম রক্ষার ম্যাচ খেলতে নেমেছিলেন৷ তাই কিলিয়ান এমবাপে এবং পল পগবাকে বসিয়ে রাখার সাহস দেখিয়েছিল ফ্রান্স৷ অন্য দিকে ডেনমার্কের জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ছিল এই ম্যাচ৷ কারণ গ্রুপে আগের দুটি ম্যাচে পেরুর সঙ্গে জয় এবং অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে ড্র এর দরুন ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপে দ্বিতীয় স্থানে ছিল ডেনমার্ক৷ আজ যদি পেরুকে হারিয়ে অস্ট্রেলিয়া ৩ পয়েন্ট বের করে নিত এবং ডেনমার্ক ফ্রান্সের কাছে হেরে যেত তাহলে অস্ট্রেলিয়াও লড়াইয়ে থাকত৷ তাই নক-আউট নিশ্চিত করার জন্য এই ম্যাচ থেকে ডেনিশদের কম করে এক পয়েন্ট হোক বের করতে হত৷

ড্র হলেও ম্যাচের প্রথমার্ধেই গোলের সুযোগ পেয়েছিল ডেনিশরা৷ ৩১ মিনিটে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ক্রিশ্চিয়ানো এরিকসনের এবং ফ্রান্সের জালের মাঝে বাধা হন গোলরক্ষক স্তিভ মাঁদাদ৷ ৩৩ বছর বয়সী এই গোলরক্ষক ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি বয়সে মাঠে নামার রেকর্ড গড়েছেন এই ম্যাচে৷ প্রথমার্ধে ফ্রান্সের আক্রমণভাগ ছিল এলোমেলো৷ কিন্তু দ্বিতীয়ার্ধে শুরু থেকেই ডেনিশ রক্ষণকে চাপে রেখেছিলেন গ্রিজমান, দেম্বেলেরা৷ তবে শেষ পর্যন্ত গোল শূন্য থাকে ম্যাচটি৷

----
--