প্যারিস: টান টান দৃশ্য৷ জেলের ভেতরেই তীব্র আওয়াজে নামল হেলিকপ্টার৷ পুলিশের চোখে চোখ রেখে নিমেষে পালাল গ্যাংস্টার৷ বন্দুকধারী ৩ রক্ষী তাকে ঘিরে, কার্যত বাকরুদ্ধ হয়েই গ্যাসংস্টারের ‘সিনেম্যাটিক’ পালানোর ঘটনা চাক্ষুস করল পুলিশ৷

ফ্রান্সের কুখ্যাত গ্যাংস্টার রেডোইন ফেইড, এভাবেই পুলিশকে দাঁড় করিয়ে ঠান্ডা মাথায় জেল থেকে পালায়৷ প্যারিসে বিরাট জনপ্রিয় গ্যাংস্টার ফেইড৷ ৯০ দশক থেকেই ফ্রান্স পুলিশের কাছে তিনি ত্রাস৷ ছোট খাটো চুরি থেকে হাত পাকিয়ে, বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম গ্যাংস্টার ফেইড৷

ফেইডের অপরাধের লম্বা তালিকা-

১৯৯৮ সালে একাধিক ব্যাঙ্ক , সরকারি দফতরের সম্পতি লুঠ করে জেলে যায়৷

২০০৯ সালে প্যারলে ছাড়া পায়, আশ্বাস দেয় অন্ধকার দুনিয়া ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরবে৷

২০১০-২০১১ সালে ফের অপরাধমূলক কাজে ঝাঁপায় ফেইড৷ সেই বছরই জেল হয়

২০১৩ সালে জেলব্রেক

২০১৭ সালে ১০ বছরের জেল হয়, ২০১০ সালে ব্যাঙ্ক ডাকাতির মাস্টার মাইন্ড ফেইড, সেই ডাকাতির সময় ২ পুলিশ কর্মীর মৃত্যু হয়৷ সবমিলিয়ে পরে ১৮ বছরের জেল হয়

২০১৮ সালের ১ জুলাই জেলব্রেক

প্যারিসে গ্যাংস্টার ফেইডের জনপ্রিয়তা তুঙ্গে৷ ২০০৯ সালে জেল থেকে প্যারলে মুক্তি পাওয়ার পর, ফেইড সামাজিক কার্যকলাপে  মন দেয়৷ এমনকি নিজেকে নিয়ে একটি বইও লিখে ফেলেন৷ ফেইডের বই থেকে প্যারিসের অপরাধ জগতের নানা অজানা তথ্যও পুলিশের হাতে আসে৷ খুশি হয়ে ফেইডকে -‘দ্য রাইটার’ বলে সম্বোধন করত ফ্রান্স পুলিশ৷

ফেইডকে ব্যক্তিগত ভাবে চেনেন এমন এক পুলিশ আধিকারিক জানান, বরাবরাই ফেইড খুব ধীরে ধীরে কথা ,প্রত্যেকের সঙ্গে তার ব্যবহারও খুব ভালো৷ যে কোনও বিষয়ে খুব সহজে কথা বলতে পারে৷ তবে তার মাথায় সবসময় পালানোর চিন্তা থাকত৷

ফেইডেরক পালানোর সময় কোনও পুলিশ আহত হননি৷ ফেইডের নেতৃত্বেই কারোর উপর গুলি চলেনি৷ তবে, রবিবার গ্যাংস্টারের পালিয়ে যাওয়াকে সবচেয়ে বড় বিফলতা বলে মনে করছে প্যারিস পুলিশ৷ ইতিমধ্যেই ফেইডের খোঁজে তৎপর প্যারিস ও ইন্টারোপোল পুলিশ৷ ফেইডের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে৷

----
--