প্রতীকী ছবি

লখনউ: সোমবার রাতে গণধর্ষণের শিকার হতে হয়েছিল। সবকিছু বাড়ির লোককে জানালেও কিছুতেই কাটছিল না অপমান আর আতংক। আর সেই কারণেই আত্মহত্যার মতো চরম সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলল গণধর্ষণের শিকার হওয়া সেই নাবালিকা।

আরও পড়ুন- টিফিনের পয়সা জমিয়ে কেরলের পাশে ক্ষুদে স্কুল পড়ুয়ারা

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের বাদাউন শহরে। বৃহস্পতিবার সকালে ওই নাবালিকার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। মৃতার পরিবারের দায়ের করা লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু করেছে পুলিশ। শুরু হয়েছে তদন্ত।

আরও পড়ুন- ‘নওয়াজ দেশকে লুটেছে, তুমি সেভাবেই আমার টাকা লুট করেছ’, ভাইরাল ভিডিও!

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার রাতের দিকে ওই নাবালিকা বাড়ির বাইরে বেড়িয়েছিল শৌচালয়ে যাওয়ার জন্য। সেই সময়ে তিন তিন ব্যক্তি তাকে তুলে নিয়ে যায়। অদূরেই একটি সরকারি স্কুল চত্বরে নিয়ে ওই নাবালিকার উপরে অত্যাচার চালানো হয়। রীতিমত বন্দুকের নলের সামনে রেখে চলে যৌন নির্যাতন। পরে রাতের দিকে অচৈতন্য অবস্থায় ওই স্কুল চত্বর থেকেই নাবালিকাকে উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন- কেরলের জন্য কাঁটাতার পেরিয়ে সাহায্য আসছে ভারতে

বিষয়টি চেপে যাওয়ার জন্য নাবালিকাকে ভয় দেখিয়েছিল তিন অভিযুক্ত। পরিবারের লোকেদের ক্ষতি করার হুমকিও দেওয়া হয়েছিল। এমনই অভিযোগ করেছেন মৃতার মা। তাঁর কথায়, “ভয়ে এবং লজ্জায় আমার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। ওর(মৃতার) দাদাদের মারাত্মক ক্ষতি করা হবে বলে হুমকি দিয়েছিল ধর্ষকেরা।”

আরও পড়ুন- কেরলের বন্যার্তদের পাশে থাকার আশ্বাস পাক প্রধানমন্ত্রীর

বাদাউনের সিনিয়র পুলিশ সুপার অশোক কুমার বলেছেন, “২১ তারিখ ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের হয়েছিল। নির্যাতিতার শারীরিক পরীক্ষা হয়েছে, তদন্ত চলছে। বৃহস্পতিবার মেয়েটি আত্মহত্যা করেছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট এখনও আসেনি।”

----
--