গুলির মুখে জঙ্গি খতম করে মরণোত্তর শৌর্য চক্র পেলেন শহিদ জওয়ান

নয়াদিল্লি: পাঠানকোট এয়ারবেসে জঙ্গি হামলার পর গরুড় কমান্ডোদের ক্ষমতার কথা জানতে পারেন সবাই। আর এবছর অশোক চক্র ও শৌর্য চক্র- দুই সেনা সম্মানই পেলেন দুই গড়ুর কমান্ডো। অশোক চক্র পেয়েছেন কর্পোরাল জেপি নিরালা আর শৌর্য চক্র পেলেন তাঁরই সঙ্গী সার্জেন্ট খইরনার মিলিন্দ কিশোর।

রাষ্ট্রীয় রাইফেলসের সদস্য ছিলেন সার্জেন্ট কিশোর। কাশ্মীরের বান্দিপোরায় পোস্টিং ছিল তাঁর। ২০১৭-র ১০ অক্টোবর জঙ্গি নিধনের অভিযানে গিয়ে শহিদ হন তিনি। তাঁকে লক্ষ্য করে জঙ্গিরা গুলি করতে শুরু করে দিলেও পিছিয়ে যাননি তিনি। মুখের উপর জবাব দিতে এক জঙ্গিকে খতম করেন, গুলিবিদ্ধ হয় আরও জঙ্গি।

তাঁরা খবর পেয়েছিলেন, জঙ্গলে লুকিয়ে আছে ছয় জঙ্গি। সেই জঙ্গিদের মারতেই হয় অভিযান। সার্জেন্ট কিশোরের দায়িত্ব ছিল জঙ্গিদের পালানোর পথ আটকানো। সেখানেই ছিলেন তিনি। সারারাত অভিযান চলার পর পরের দিন ভোর ৪টে ৪০ মিনিট নাগাদ পালাতে থাকে জঙ্গিরা। সার্জেন্ট কিশোরকে সামনে পেয়ে তাঁর দিকে তাক করেই গুলি, গ্রেনেড ছুঁড়তে শুরু করে জঙ্গিরা। তোয়াক্কা না করে এক জঙ্গিকে খতম করেন তিনি। এরপর তাঁর শরীরে বিঁধতে শুরু করে একের পর এক গুলি। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই মৃত্যু হয় তাঁর।

Advertisement ---
---
-----