‘সুশাসন’ শিকেয় তুলে গোরক্ষকদের তান্ডব!

লখনউ : ফের উত্তরপ্রদেশে গোরক্ষকদের তাণ্ডব৷ ফের গরুপাচারের অভিযোগে মারধর দুই ব্যক্তিকে৷ তথাকথিত গোরক্ষক দলের সদস্যরা রাজ্যের শামলি জেলায় দুই ব্যক্তিকে আটকায়৷ দলের সদস্যদের অভিযোগ ওই দুই ব্যক্তি একটি ছোট ট্রাকে করে গরু নিয়ে যাচ্ছিল৷ গোহত্যার জন্যই এই পাচার হচ্ছিল বলে সন্দেহ তাঁদের৷

এরপরেই ওই ট্রাকের ওপর হামলা চালায় দলের সদস্যরা৷ লাঠি, বেল্ট দিয়ে যথেচ্ছ ভাবে মারধর করা হয় ওই দুই ব্যক্তিকে৷ তারপরেই পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে৷ শামলি জেলার আদর্শ মাণ্ডি এলাকার ঘটনা৷  ছোট ট্রাকটিতে চারজন গরু নিয়ে যাচ্ছিলেন৷ এদের মধ্যে দুজন কোনওক্রমে পালাতে সক্ষম হন৷ বাকি দুজন ধরা পড়ে যান দলের সদস্যদের হাতে৷ সংবাদসংস্থা এএনআইকে পুলিশ জানিয়েছে ওই দুই ব্যক্তিকে প্রচণ্ড মারধর করা হয়৷ স্থানীয় বাসিন্দারা জড়ো হয়ে গেলেও, সাহায্যের জন্য কেউ এগিয়ে আসেননি৷ এমনকি ঘটনাস্থলে এক পুলিশ কনস্টেবল থাকলেও দর্শকের ভূমিকা পালন করেছিল সে৷

পরে পুলিশ গিয়ে ওই আহত দুই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়৷ এই ঘটনায় দুটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে৷ গরু পাচারের অভিযোগ এনে ওই দুই আহত ব্যক্তির নামে মামলা দায়ের করেছে গোরক্ষকরা৷ দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হবে বলে জানানো হয়েছে৷ অন্যদিকে গণপিটুনির ঘটনায় কারা কারা যুক্ত, সে বিষয়ে তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন শামলির পুলিশ সুপার৷

- Advertisement -

এরআগে, গরুচোর সন্দেহে উত্তরপ্রদেশের হাপুরে দু’জনকে গণপিটুনি দেয় জনতা। তাঁদের মধ্যে এক জনের মৃত্যু হয়৷ দিল্লি থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে উত্তরপ্রদেশের হাপুরে কাসিম নামে এক ব্যক্তি ও তাঁর বন্ধুও জনরোষের শিকার হয়। কাসিমের বন্ধুর নাম জানা যায়নি। পরিবারের দাবি, ক্ষেতে ঢুকে পড়েছিল একটি মোষ ও একটি মোষের বাচ্চা। তিনি ও তাঁর বন্ধু তাদের তাড়ানোর চেষ্টা করছিলেন। তখনই মোষচোর তকমা দিয়ে চড়াও হয় এক দল লোক।দেশে গোরক্ষকদের তাণ্ডব নিয়ে বার বারই অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকারকে।

গোরক্ষকদের তাণ্ডব রুখতে কড়া হয় সুপ্রিম কোর্ট৷ প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বে তিন বিচারপতির বেঞ্চ জানায় আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া যাবে না। গণপিটুনির মতো কোনও ঘটনা ঘটলে রাজ্যগুলিকে নিজস্ব দায়িত্ব পালন করতে হবে। একই সঙ্গে অভি্‌যুক্তদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে৷ সরকার কী ব্যবস্থা নিয়েছে, তা ৪ সপ্তাহের মধ্যে জানানোর জন্য নির্দেশের পাশাপাশি এই ধরনের ঘটনা রুখতে নতুন আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নিক সংসদ, এমনই জানায় শীর্ষ আদালত৷

Advertisement
---