মুখ্যমন্ত্রীর সাধের সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ঘুরে বেড়াচ্ছে ভুত!

শঙ্কর দাস, বালুরঘাট: মুখ্যমন্ত্রীর সাধের সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভুতের আনাগোনা। লিফটের ভেতর ফিস ফিস রবে ভুতুড়ে বাৰ্তালাপের শব্দ। এমনকি হাসপাতালের অব্যবহিত কোন ঘরের ভেতর সুন্দরী কারও যাতায়াতের ঘটনা।

এমনই সব একগুচ্ছ ভৌতিক কার্যকলাপ নিয়ে সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের রোগী ও তাঁদের আত্মীয়স্বজন এমনকি খোদ হাসপাতালের কর্মীদেরও একাংশ আতঙ্ক গ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। হাসপাতালের ভেতরে ভুতেদের গতিবিধি নিয়ে আতঙ্কের বিষয়টি এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে রাতের বেলা জরুরী প্রয়োজনেও হাসপাতালের কর্মীরা ওয়ার্ডের বাইরে যেতে চান না। রাতের বেলা হাসপাতালের ভেতরে ভুতেদের আনাগোনা ও ফিস ফিস শব্দে বার্তালাপের এমন ঘটনায় চরম আতংকের সৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে।

হাসপাতালটি চালুর কিছুদিন পর থেকেই ভেতরে শুরু হয়েছে ভয়। হাসপাতালের ভেতরে লন দিয়ে যাতায়াতের পথে লিফটের চেম্বারের সামনে কখনও সুন্দরী কাউকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা। কখনও লিফট দিয়ে একাকী ওঠানামার সময় ভেতরে কানের কাছে ফিস ফিস করে কোনও কিছু বলার শব্দ। কখনও আবার ভেতরে শুনশান এলাকা দিয়ে আসা যাওয়ার সময় কোনও মহিলা কর্মীর হাত অদৃশ্য কেউ ধরে টানাটানি করার মতো ঘটনার অভিযোগও শোনা যায়। পরিস্থিতি এমন যে অসুস্থ রোগীর চিকিৎসা হাসপাতালে করাতে গিয়ে উল্টে ভুতেদের আতংকে দিশেহারা আত্মীয়স্বজন থেকে সকলে।

- Advertisement -

ভুতের আতঙ্ক কাটাতে স্বয়ং হাসপাতাল সুপার থেকে শুরু করে মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক দুইজনে নিজেরাই ভুতেদের উপস্থিতি চাক্ষুষ করতে পরিদর্শনও শুরু করেছেন। এদিকে রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারপার্সন তথা বালুরঘাটের সাংসদ অর্পিতা ঘোষ জানিয়েছেন যে সুপার স্পেশালটির ভেতরে ভূতেদের আনাগোনা বা ভুতের আতংকের অভিযোগ তাঁর কানেও এসেছে। তিনি এব্যাপারে হাসপাতালে বৈঠকও করেছেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সুকুমার দে পুলিশ সুপার প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায় হাসপাতাল সুপার ডাঃ তপন বিশ্বাস সেই সঙ্গে নার্সিং সুপারিন্টেনডেন্ট ও হাসপাতালের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা সিকিউরিটি সংস্থার প্রতিনিধি সহ অন্যান্যরা। সাংসদ অর্পিতা ঘোষ জানিয়েন ভুতের ভয়ের আড়ালে হাসপাতালের ভেতর অসামাজিক কাজকর্ম বা অন্য কোন কু-কর্ম চলছে কি না সেব্যাপারে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

এব্যাপারে দক্ষিণ দিনাজপুরের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সুকুমার দে হাসপাতালের ভেতরে ভুত দেখা বা ভুতের আনাগোনা সবটাই গুজব বলে তিনি জানিয়েছেন। পাশাপাশি তিনি এই কথাও বলেছেন যে অনেক সময় বড় কোনও বিল্ডিং বা ঘরের ভেতর রাতের নিস্তব্ধতায় একটু ভয় ভয় সকলেরই লাগে। মনে হয় অদৃশ্য কেউ যেন চলাফেরা ও ফিস ফিস আওয়াজ করছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় যেটাকে বলা হয় “মনোফোবিয়া”। এমনও হতে পারে যে কোনও অসৎ উদ্দেশ্যে বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ভেতর কেউ পরিকল্পিত ভাবে ভুতের আতংক ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কি কারণে এমন পরিস্থিতি তা তিনি তদন্ত করে দেখবেন বলেও মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক জানিয়েছেন।

Advertisement
----
-----