মদের পর, এবার রাজ্যে নিষিদ্ধ মাছ!

পানাজি: গোয়া যেতে চান? তাহলে জেনে রাখুন আগামী ১৫ দিন মাছ পাওয়া দুষ্কর সে রাজ্যে৷ আপাতত হোটেল ব্যবসায়ী ও পর্যটকদের মাথায় হাত পড়েছে৷ কারণ সম্প্রতি গোয়াতে নিষিদ্ধ হয়েছে মদ৷ গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর পারিকর জানিয়ে দিয়েছেন আগামী ১৫ দিন গোয়ার সংলগ্ন পাশ্ববর্তী কোনও রাজ্য থেকে মাছ আমদানি করা হবে না গোয়ায়৷ মনে করা হচ্ছে মাছে ফরমালিন মেশানো হচ্ছে, এই তথ্য সামনে আসার পরেই পার্শ্ববর্তী রাজ্যের মাছ ঢোকা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে৷

পয়লা আগষ্ট থেকে এই নিষেধাজ্ঞা অবশ্য উঠে যাবে৷ গোয়ার সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী৷ তবে এতে গোয়ার সাধারণ মানুষ ও গোয়ায় আসা পর্যটকরা কোনও অসুবিধায় পড়বেন না বলেই মনে করছে প্রশাসন৷ কারণ প্রশাসন জানাচ্ছে, গোয়াতে যে পরিমাণ মাছের চাষ হয়, তা চাহিদা পূরণ করতে যথেষ্ট৷ এতে মানুষ টাটকা মাছ খেতে পারবেন বলেও আশাবাদী প্রশাসন৷

এই ১৫ দিনের জন্য যথেষ্ট পরিমাণের মাছ মজুত রয়েছে রাজ্যের কাছে বলে জানাচ্ছে গোয়া সরকার৷ তাই ব্যবসায়ী বা ক্রেতাদের অহেতুক আতঙ্কিত হওয়ার কারণ নেই বলেও জানানো হয়েছে৷ বুধবার জারি করা এক বিবৃতিতে এই সব তথ্যই তুলে ধরেছে গোয়া সরকার৷ এর পাশাপাশি, মুখ্যমন্ত্রী একটি সাংবাদিক সম্মেলনও কেরন৷

এ মাসের শুরুতেই একই কারণে অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে মাছের আমদানি বন্ধ করে দেয় অসমও৷ প্রায় ১০ দিন আমদানি বন্ধ রেখেছিল তারা৷ এরআগে, জানা যায়, বিভিন্ন রাজ্য থেকে আমদানি করা মাছেই শুধু নয়, রাজ্যে উৎপাদিত মাছকেও টাটকা রাখতে ব্যবহার করা হচ্ছে ফরমালিন। এ কারণে চোখ বা ত্বকের চুলকানি থেকে শুরু করে কিডনি খারাপ বা ক্যানসারের মতো মরণব্যাধির আশঙ্কা থাকছে মাছপ্রেমীদের। এমন কি শুধু অসমই নয়, উত্তর-পূর্বাঞ্চলের মণিপুর, মেঘালয় ও নাগাল্যান্ডেও ফরমালিন মেশানো মাছ ধরা পড়েছে। অতি সম্প্রতি নাগাল্যান্ড সরকার ফরমালিনযুক্ত প্রচুর মাছ বাজেয়াপ্তও করে।

Advertisement ---
---
-----