প্রতিরক্ষা বাজেটে চিন-পাকিস্তানের থেকেও পিছিয়ে ভারত!

নয়াদিল্লি: বৃহস্পতিবার সংসদে, মোদী সরকারের শেষ বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি৷ এতে কৃষক এবং গ্রামবাসীদের জন্য বিভিন্নরকম ঘোষণা হলেও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে যে বাজেট পেশ হয়েছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে৷ ২০১৮-১৯-এর জন্য প্রতিরক্ষা বাজেট ৭.৮১শতাংশ বাড়িয়ে ২.৯৫লক্ষ কোটি টাকা করা হয়েছে, যা চলতি আর্থিক বছরে ২.৬৭লক্ষ কোটি টাকা ছিল৷

প্রসঙ্গত, প্রতিরক্ষা বাজেট ২০১৮-১৯-এর আনুমানিক জিডিপি ১.৫৮শতাংশ যা ১৯৬২ সালে চিনের ইন্দো-চিন যুদ্ধের সময়ের থেকেও কম৷ অনেকের মতেই, দেশের বর্তমান অর্থব্যবস্থায় প্রতিরক্ষা খাতে ২.৫শতাংশের বেশি বাজেট হওয়া প্রয়োজন যা ১.৫৮শতাংশ৷

- Advertisement DFP -

পড়ুন: ভারতীয় নৌবাহিনীতে ফের ঘাতক সাবমেরিন

পরমাণু শক্তিধর রাষ্ট্রের সঙ্গে মোকাবিলা বা শত্রু দেশকে পাল্টা জবাব দিতে ভারত বারবার তার সামরিক উন্নতির কথা বলেছে৷ কিন্তু প্রতিরক্ষা খাতের বাজেট যেন কিছুটা বিপরীতধর্মী আচরণের দিকেই ইঙ্গিত করছে বলে মন্তব্য কারও কারওর৷

ক্ষমতায় আসার পর মোদী সরকার ২০১৪-১৫সালে প্রতিরক্ষা বাজেট ২লক্ষ ২৯হাজার কোটি করে দিয়েছিলেন৷ এরপর ২০১৫-১৬ সালে তা বেড়ে ২লক্ষ ৪৬হাজার কোটি হয়৷ ২০১৬-১৭সালে তা আরও খানিকটা বেড়ে হয় ২লক্ষ ৫৬হাজার কোটি৷ গত বছর, ১ফেব্রুয়ারি ২০১৭-১৮সালে অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি সেই বাজেট বাড়িয়ে ২লক্ষ ৭৪হাজার কোটি করেন৷ অন্যদিকে প্রতিবেশী দেশের দিকে চোখ রাখলে দেখা যা, পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা বাজেট তার জিডিপির ৩.৪ শতাংশ এবং চিনের ক্ষেত্রে তা ১.৯শতাংশ৷ ইজরায়েল তার জিডিপির ৫.৭শতাংশ প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় করে থাকে৷

পড়ুন: ভারতীয় ট্যাংকের জন্য কেনা হচ্ছে কয়েক লক্ষ রাউন্ড গোলা-বারুদ

তবে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে বাজেট পেশের সঙ্গে দেশকে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে আত্মনির্ভরতার ওপরেও জোর দেওয়া হয়েছে৷

Advertisement
----
-----