পৃথ্বীকে এলিট ক্লাবে স্বাগত জানালেন বিশ্বনাথ

বেঙ্গালুরু: দিল্লির বিরুদ্ধে বিজয় হাজারে ট্রফির ফাইনালে ব্যাট হাতে ব্যর্থ হওয়ায় হতাশ হয়ে বসেছিলেন ড্রেসিংরুমে৷ বিপর্যয় কাটিয়ে মুম্বই শেষমেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় হতাশা কাটে তরুণ পৃথ্বী শ’র৷ তবে তাঁর জন্য যে এমন চমক অপেক্ষা করেছিল, পৃথ্বী সেটা বুঝতে পারেন ম্যাচের শেষে৷ যাবতীয় হতাশা তখন উচ্ছ্বাসে পরিণত হয় টিম ইন্ডিয়ার নবাগত টেস্ট ওপেনারের৷

আরও পড়ুন: পৃথ্বীর মধ্যে তিন কিংবদন্তির ছায়া দেখছেন শাস্ত্রী

ভারতের হয়ে টেস্ট অভিষেকেই দুরন্ত শতরান করে একঝাঁক রেকর্ড গড়েন পৃথ্বী৷ সেই সব রেকর্ডের মাঝে তিনি একটি বিরল নজির ভাগ করে নেন কিংবদন্তি গুন্ডাপ্পা বিশ্বনাথের সঙ্গে৷ পৃথ্বী হলেন ইতিহাসের তৃতীয় ক্রিকেটার, যিনি প্রথম শ্রেনির ক্রিকেট এবং টেস্ট অভিষেকেই শতরান করার কৃতিত্ব দেখান৷

ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথমবার এমনটা করে দেখিয়েছিলেন একজন ভারতীয়৷ তিনি অন্য কেউ নন, স্বয়ং বিশ্বনাথ৷ ১৯৬৯ সালে টেস্ট ক্যাপ হাতে পেয়েই সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি৷ পরে ১৯৮০-৮১ মরশুমে অস্ট্রেলিয়ার ডার্ক ওয়েলহ্যাম বিশ্বনাথের রেকর্ড ছুঁতে সক্ষম হন৷ এতদিন পর পৃথ্বী তাজা করেন বিশ্বনাথের পুরনো স্মৃতি৷

আরও পড়ুন: এক কোটি চেয়ে মামলা পৃথ্বীর

পৃথ্বী বেঙ্গালুরুতে খেলতে আসছেন শুনে বিশ্বনাথ তাঁর সঙ্গে দেখা করা মনস্থির করেন৷ সেই মতো আচমকাই মুম্বইয়ের ড্রেসিংরুমে চলে আসেন তিনি৷ পৃথ্বীর সঙ্গে কথা বলেন এবং ভবিষ্যতের জন্য শুভেচ্ছা জানান৷ বিশ্বনাথ নিজেই এখবর জানিয়ে বলেন, ‘যখন শুনি পৃথ্বী বেঙ্গালুরুতে খেলতে আসছে, ঠিক করি ওর সঙ্গে দেখা করব৷ টেস্ট অভিষেকেই আসাধারণ সেঞ্চুরি করে এলিট ক্লাবে ঢুকে পড়ার জন্য ওকে অভিনন্দন জানাই৷ ওকে বলি ৪৯ বছর পর দ্বিতীয় ভারতীয় হিসবে এই এলিট ক্লাবে ঢুকে পড়ল ও৷ ওকে এটাও বলি যে, সবে মাত্র ওর শুরু৷ ওর কাছ থেকে আরও অনেক সেঞ্চুরি দেখার প্রত্যাশায় থাকবে৷’

আরও পড়ুন: পৃথ্বীকে অভিনব শুভেচ্ছা মুম্বই পুলিশের

পৃথ্বী নিজেও আপ্লুত বিশ্বনাথের সঙ্গে দেখা করতে পেরে৷ তিনি বলেন, ‘বিশ্বনাথ স্যারের মতো কিংবদন্তির সঙ্গে দেখা করাটা স্বপ্ন সত্যি হওয়ার মতো ছিল৷’

----
-----