‘জিএসটির কারণে বাড়ছে বেকারত্ব’

সিমলা: জিএসটি-র দৌলতে আসবে না আচ্ছে দিন। বরং ক্রমবর্ধমান হারে বেড়ে চলেছে বেকারত্ব। এমনই মনে করছেন কংগ্রেস সহ সভাপতি রাহুল গান্ধী।

শনিবার হিমাচল প্রদেশের মান্দি এলাকায় একটি দলীয় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রাহুল গান্ধী। সেই সভাতেই কেন্দ্রের জিএসটি কার্যকর করা নিয়ে নিজের ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন রাহুল। তাঁর কথায়, “কেন্দ্র সরকার খুব দ্রুত জিএসটি বিলের বাস্তবায়ন করেছে। যার ফলে বহু মানুষ কাজ হারিয়েছেন।” রাহুল গান্ধী দাবি করেছেন যে জিএসটি বা গুড অ্যান্ড সার্ভিস ট্যাক্সের কারণে সবথেকে বেশি ক্ষতি হয়েছে প্রধানমন্ত্রী মোদীর রাজ্য গুজরাতে। রাহুলের দাবি, “শুধুমাত্র গুজরাতে ৩০ লক্ষ যুবক-যুবতী কাজ হারিয়েছে জিএসটি বিল অতি দ্রুত কার্যকর হওয়ার কারণে।”

ইউপিএ জামানাতেই জিএসটি বিল কার্যকর করা নিয়ে তৎপর হয়েছিল কেন্দ্র। কিন্তু, সেই সময় বিরোধী বিজেপি সেই বিলে সমর্থন করেনি। গুজরাতের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও বিরোধিতা করেছিলেন এই জিএসটি বিলের। যদিও নিজেরা ক্ষমতায় এসে তা কার্যকর করেছে পদ্ম শিবির। লোকসভায় বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা থাকায় সেই বিল পাশে কোনোপ্রকার সমস্যা হয়নি।

- Advertisement -

আগামী বছরে হিমাচল প্রদেশ এবং গুজরাতে বিধানসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। গুজরাত সফরের পর শনিবার হিমাচল প্রদেশে ‘বিকাশের থেকে বিজয়ের পথে’ নামক দলীয় অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন রাহুল গান্ধী। বেকারত্ব দূর করতে হিমাচল প্রদেশ গুজরাতের থেকে অনেক এগিয়ে রয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। একইসঙ্গে তিনি বলেছেন, “বেকারত্ব দেশের সবথেকে বড় সমস্যা।”

যদিও বিশ্ব ব্যাংকের মতে, ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধিতে যে ভাটা চলছে তা অস্থায়ী৷ প্রধানত জিএসটি-এর প্রস্তুতির জন্যই তাৎক্ষণিক বাধার মুখে অর্থনৈতিক ব্যবস্থা এমনই বলা হয়েছে বিশ্ব ব্যাংকের তরফ থেকে৷ আগামী দিনে এই অবস্থার যে পরিবর্তন হবে এবং ‘অচ্ছে দিন’ যে ফিরে আসবে সে বিষয়েও আশ্বাস দিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক৷

Advertisement
----
-----