এবার স্ট্রেটনার ছাড়াই চুল স্ট্রেট করুন বাড়িতে

স্মুদেনিং, স্ট্রেটনিং, কার্লিং৷ নানা রকমের স্টইলিংয়ে বারোটা বাজে চুলের৷ স্টাইল না হয় হল, কিন্তু চুলের খেয়াল রাখতে গিয়ে কত যে ঝামেলা পোয়াতে হয় তা তো কেবল মেয়েরাই জানে৷ স্ট্রেট করার আগে সিরাম লাগাবার কথা, এই নিয়মটা অনেকেই তাড়াহুড়োর মধ্যে ফোলো করতে ভুলে যান৷ সপ্তাহে অন্তত তিন বার চুলে তেল লাগানো প্রয়োজন৷ সেটাও করা হয়ে ওঠে না৷ এদিকে পার্লারে স্টাইলিং করাতে গিয়ে হাজার হাজার টাকা খরচাও হচ্ছে অন্যদিকে চুলের যত্নও হচ্ছে না৷ তাই এসব পার্লার, স্যালনের ঝামেলা ছেড়ে বাড়িতে বসেই স্ট্রেট করে নিতে পারেন নিজের চুল৷

ডিম আপনার চুলের উজ্জ্বলভাব বজায় রাখে। এবং গোড়া থেকে শক্তও করে৷ আর অলিভ অয়েল চুলে আর্দ্রতা বজায় রাখে৷ এই দুটির মিশ্রণে আপনি পেয়ে যাবেন স্ট্রেট সিল্কি চুল৷ দুটো ডিম ফেটিয়ে তাতে চার চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে আবার ফেটিয়ে নিন। তারপর পুরো চুলে ভালো করে লাগিয়ে ফেলুন৷ মোটা চিরুনি দিয়ে ধীরে ধীরে চুল আঁচড়াতে থাকুন৷ কিছুক্ষণ ওইভাবেই রেখে দিন চুলটাকে৷ চল্লিশ মিনিট রেখে শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন৷

অনেকেই জানেন না যে নারকেলের দুধ চুল সোজা রাখে৷ এমনকি চুল সিল্কিও করে৷ আপনার স্ক্যাল্পকেও বিভিন্ন ইনফেকশন থেকে বাঁচায় এই নারকেলের দুধ৷ এক কাপ তাজা নারকেলের দুধে একটা লেবু চিপে পুরো রস বের করে ভালো করে মিশিয়ে নিন৷ মিশ্রণটি অন্তত তিন ঘন্টা ফ্রিজে রেখে দিন। ফ্রিজ থেকে বের করে মিশ্রণটি খানিকটা গলিয়ে চুলে লাগিয়ে ফেলুন৷ স্ক্যাল্পে বেশি করে লাগান৷ ৩০-৪০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন৷

- Advertisement -

এতদিন জানতেন মুলতানি মাটি ত্বকের জন্য ভালো৷ কিন্তু চুলের জন্যও একই রকম উপকারি৷ মুলতানি মাটিতে জল মিশিয়ে গাঢ় পেস্ট তৈরি করে নিন। গাঢ় হয়ে গেলেই চুলে লাগিয়ে ফেলুন৷ তারপর ধীরে ধীরে চুল আঁচড়ে নিন। কিছুক্ষণ চুল আঁচড়াবার পর দুই ঘন্টা ওইভাবেই রেখে দিন। এছাডা়ও হালকা গরম জলে মুলতানি মাটি, একটা ডিম এবং দু চামচ চালের গুঁড়ো মিশিয়ে মিশ্রন বানিয়ে ফেলুন৷ মোটামোটি গাঢ় পেস্ট তৈরি করে মাথায় লাগিয়ে ফেলুন। আধ ঘন্টা রেখে চুল ধুয়ে ফেলে দুধ স্প্রে করে দিন৷ এবং কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে শ্যাম্পু করে ফেলুন৷ প্রক্রিয়াটি লম্বা হলেও বেশ উপকারী৷

স্নানের পর ভেজা চুল হালকা করে মুছে নিন৷ ভেজা চুল বার বার আঁচরাতে থাকুন৷ যতক্ষণ না চুল শুকিয়ে যাচ্ছে ততক্ষণই আঁচরাতে থাকুন৷ তবে টানা আঁচড়ানোর দরকার নেই৷ কিছুক্ষণ অন্তর অন্তর চুল আঁচরান৷ তবে চুল পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়া অবধি অপেক্ষা করতে হবে৷ আপনার হয়তো মনে হতে পারে যে বারবার চুল আঁচড়ালে চুলের ক্ষতি হয়৷ বা ভেজা চুল আঁচড়াতে নেই৷ সেই কারণে ভালো কন্ডিশনার লাগিয়ে তবেই এই রেমেডিটি অনুসরণ করবেন৷ নয়তো চুল পড়ার সম্ভাবনা বাড়তে পারে৷

Advertisement ---
---
-----