রহস্যের গন্ধে এখনও চলছে টিনের ফাঁকে উঁকিঝুঁকি উৎসাহী মানুষের

সোয়েতা ভট্টাচার্য, কলকাতা: ২৪ ঘন্টা আগেই হঠাত করে হরিদেবপুর এলাকা খবরের শিরোনামে চলে আসে৷ কখনও কঙ্কাল কখনও আবার ভ্রূণ উদ্ধারের খবর। লাগাতার সংবাদমাধ্যমের ঝলকানি। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই হঠাত করে শহরবাসীর কাছে অন্যতম আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছিল হরিদেবপুর থানা এলাকার ২১৪ নম্বর রাজা রামমোহন সরণির জায়গাটি৷

তার ওপর আবার কলকাতা পুলিশের নগরপাল রাজীব কুমার এবং কলকাতা পুরসভার মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ঘটনাস্থলে ছুটে আসা ঘটনায় আগুনে ঘি ঢালার কাজ করেছে ৷ আগুনের মতো এই খবর ছড়াতেই এলাকা সহ শহরের বিভিন্ন জায়গা থেকে মানুষ ঘটনাস্থলে ছুটে আসে ৷ সবার কৌতুহল একটাই। শুধু কৌতুহলই নয়, নজরও ছিল ওই পড়ে থাকা জমির দিকেই। রবিবার থেকে সোমবার। প্রায় কেটে গিয়েছে কয়েক ঘন্টা। যার মধ্যে পুলিশ তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে সেখানে কিছুই পাওয়া যায়নি। তাতে কি! সাধারণের উতসাহ যে কোনও ভাবেই ভাটা পড়েনি তার প্রমাণ পাওয়া গেল সোমবারও।

সোমবার সকাল থেকেই একাধিক মানুষকে এই এলাকায় ঘোরাফেরা করতে দেখা যায় ৷ অনেকে আবার এই মাঠের ভিতরেও ঢোকার চেষ্টাও করে ৷ সাইটের কর্মীরাই এই উৎসুক মানুষদের ভিতরে প্রবেশ করতে বাঁধা দেন ৷ কেউ বলেন পাশের পাড়ার থেকে এসেছেন কেউ আবার বলের এই পাড়ারই বাসিন্দা ৷

- Advertisement -

নিজের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মহিলা বলেন, এই ঘটনার পর থেকে আমাদের ঘুম উড়ে গিয়েছে ৷ এই পাড়াতে বিয়ের পর থেকে ২৫ বছর ধরে আছি ৷ এমন ঘটনা ঘটেনি কখনও ৷ আরেক ব্যক্তি বলেন, তিনি নাকি রাত পর্যন্ত জানতে পারেননি যে মেডিক্যাল পরীক্ষার প্রাথমিক রিপোর্ট কোনও ভ্রূণ বা মানুষের অংশ থাকার কথা উড়িয়ে দিয়েছে ৷ রিপোর্ট যাই বলুক আমাদের আতঙ্ক এই ঘটনার পর অনেকটাই বেড়ে গেছে বলে জানান এক এলাকাবাসী ৷ সোমবার সকাল থেকে একে একে এই জায়গা দেখতে আসছেন সাধারণ মানুষ ৷

প্রসঙ্গত, রবিবার পুলিশের তরফে জানানো হয় ১৮টি শিশু ভ্রূণ উদ্ধার হয়েছে ৷ পুলিশের তরফে এই বক্তব্য বিষয়টিতে মানুষের উৎসাহ আরও বাড়িয়ে তোলে ৷ তবে ২৪ ঘটনা কাটতে না কাটতেই ঘটনার ভোল বদল হয়ে যায়। লালবাজার সূত্রের খবর, রবিবার দক্ষিণ কলকাতার হরিদেবপুর থানা এলাকার ২১৪ নম্বর রাজা রামমোহন সরণির একটি ফাঁকা জমির জঙ্গল থেকে উদ্ধার হয় ১৪টি প্লাস্টিকের প্যাকেট৷ সেগুলো এম আর বাঙ্গুর হাসপাতালে পাঠানো হয়৷

ডাক্তাররা প্যাকেট খুলে পরীক্ষা করে জানান, প্যাকেটের মধ্যে কোনও ভ্রূণ বা মানবদেহের অংশ পাওয়া যায়নি৷ যা পাওয়া গিয়েছে তা হল মেডিক্যাল বর্জ্য ৷ কি ধরনের বর্জ্য তা জানা যাবে ফরেনসিক পরীক্ষার পরই ৷ ঠিক সেই মত সোমবার এই প্লাস্টিকগুলি ফরেনসিকের জন্য পাঠান হয়েছে ৷ পরীক্ষার ফল যাই আসুক সাধারণ মানুষের মধ্যে এই প্লাস্টিক কান্ড কে ঘিরে উত্তেজনার শেষ নেই ৷ যার প্রমাণ মিলল আজ সোমবারও।

Advertisement ---
---
-----