সুভীক কুন্ডু, কলকাতা: কাছে থেকেও সময়ের পরিহাসে আজ একে অপরের থেকে অনেক দূরে! বাইশ গজে স্বামীর বল হাতে লড়াইয়ে আজ আর তাঁর গর্ব অনুভব হয় না৷ কারণ সম্পর্কের লড়াইয়ে আজ যেন দু’জনেই বাইশ গজের দুই প্রান্তে!

মহম্মদ শামি ও হাসিন জাহানের সম্পর্ক এখন অম্ল-মধুর৷ দু’জনেই একবার করে দূরত্ব ঘোছানোর চেষ্টা করে এখন সরে এসেছেন৷ হাসিনের আনা একাধিক অভিযোগের পর প্রথমবার কলকাতা পা-রেখেছেন ভারতীয় দলের এই ক্রিকেটার৷ আইপিএলে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের জার্সি সোমবার ইডেনে দেখা যাবে শামিকে৷ রবিবাসরীয় বিকেলে শহরে এলেও নিজেকে ক্রিকেটের মধ্যেই আবদ্ধ রেখেছেন ডেয়ারডেভিলসের এই পেসার৷ মিডিয়ার সঙ্গে সেভাবে কথা বলছেন না৷ হোয়াইসঅ্যাপেও এড়িয়ে চলছেন৷ আর হাসিন জাহান? তিনি এখন ঠিক কোন অবস্থানে?

তিক্ততা ভুলে আজ ইডেনে নাইটদের বিরুদ্ধে শামির পারফরম্যান্স মাঠে বসে দেখবেন হাসিন? ফোনের ওপারে হাসিনের সটাং উত্তর, ‘কোনও প্রশ্নই ওঠে না৷ ইডেনে গিয়ে শামির খেলা দেখব ভাবলেন কী করে? আমি ওর সঙ্গে কোনও রকম সম্পর্কই রাখতে চাই না৷’ শামি কলকাতায় এসেছেন একবার দেখা করবেন না? প্রশ্ন শুনে আরও চোটে গিয়ে হাসিনের উত্তর, ‘দিল্লি গিয়ে ওর ব্যবহারে আমি আঘাত পেয়েছি৷ দুর্ঘটনার ভান করে ভারতবাসীর মন গলিয়েছে শামি৷ পুরোটাই ওর অভিনয় ছিল৷ আর শামির ফাঁদে পা দিতে চাই না৷’ এতেই না-থেমে আরও অভিযোগ নিয়ে সোচ্চার হবেন বলে জানিয়ে রাখলেন তিনি৷

শামির বিরুদ্ধে হাসিনের সর্বশেষ অভিযোগ, বয়স ভাঁড়ানোর৷ সেই সূত্রের কথা মনে করিয়ে জানালেন, ‘শামির আসল বার্থ সার্টিফিকেটে ওর জন্মের সাল রয়েছে ১৯৮৪৷ আর ও যে ডকুমেন্ট ক্রিকেট খেলার সময়ে জমা দিয়েছে তাতে ওর জন্ম সাল হিসেবে উল্লেখ রয়েছে ১৯৯০ সালের৷’ আসল ডকুমেন্টস নিয়ে শীঘ্রই মিডিয়ার সামনে আসবেন বলে জানান হাসিন৷ প্রশ্নের ফাঁকে উঠে এলে শামি-হাসিনের মেয়ে বেবোর প্রসঙ্গ৷ হাসিন বলেন, ‘বাবাকে খুব মিস করে বেবো, তবে এখন ওর বয়স অল্প৷ কিছু বোঝার বোধবুদ্ধি ওর হয়নি৷ বাবার আসল রুপটাই তো দেখেনি৷ আমিও চাই না বাবার খারাপ দিকগুলো ও জানুক৷’

বিবিসিআই থেকে ক্লিনচিট পেয়ে বাইশ গজে ফিরলেও ব্যক্তিগত বিতর্ক থেকে নিস্তার পাননি শামি৷ তাঁর বিরুদ্ধে স্ত্রী’র আনা বধূ-নির্যাতনের মামলায় এখনও তদন্ত করে চলেছে পুলিশ৷ এমন পরিস্থিতিতে ঈশ্বরের উপরই সব ছেড়ে দিচ্ছেন হতাশ হাসিন৷

©Kolkata24x7 এই নিউজ পোর্টাল থেকে প্রতিবেদন নকল করা দন্ডনীয় অপরাধ৷ প্রতিবেদন ‘নকল’ করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে ----
----