হালিশহরে শ্রমিকের মৃত্যু দেখে প্রাণ হারালেন মধ্যবয়স্কা

প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: পুরনো বাড়ি মেরামতের কাজ করতে গিয়ে দেওয়াল চাপা পরে পড়ান হারালেন এক শ্রমিক। আর সেই দৃশ্য দেখে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ খোয়ালেন মধ্যবয়স্ক এক মহিলা।

সোমবার সকালের দিকে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনা জেলায় হালিশহরে। মৃত ওই শ্রমিকের নাম রবি পাল। ৩৫ বছর বয়সী রবি পালের সঙ্গে প্রাণ গিয়েছে ৪৭ বছর বয়সী মিনতি রানী দত্তের।

বীজপুর থানার পুলশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে পুরনো বাড়ি মেরামতের কাজ করতে গিয়ে পাঁচিল চাপা পরে প্রাণ হারিয়েছেন রবি পাল। তাঁর সঙ্গে ওই বাড়িতে কাজে অংশ নেওয়া আরও তিন শ্রমিক জখম হয়েছেন। অন্যদিকে এই দুর্ঘটনা নিজের চোখে দেখেছিলেন স্থানীয় বাসিন্দা মিনতি রানী দত্ত। মর্মান্তিক এই ঘটনার বীভৎসতা দেখে হৃদরগে আক্রান্ত হয়ে তিনিও প্রাণ হারান।

দুর্ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছায় পুলিশ দমকলের কর্মীরা। স্থানীয়দের তৎপরতায় চাপা পরে যাওয়া পাচিলের তলা থেকে জখমদের বেড় করে নিয়ে আসে দমকল বাহিনীর সদস্যরা। জখম অন্য তিন শ্রমিককে কল্যাণীর জহরলাল নেহরু হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। ওই তিন শ্রমিক হলেন- শঙ্কর দাস,পরিতোষ দাস ও তারক দে। সমগ্র ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে বীজপুর থানার পুলিশ।

খুব স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে হালিশহর রামসীতা লেন এলাকায়। এদিন ঘটনাস্থলে গিয়েছিলেন স্থানীয় বিধায়ক শুভ্রাংশু রায়। তিনি বলেন, “মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটে গিয়েছে। হালিশহর অঞ্চলে পুরনো দিনের অসংখ্য বাড়ি রয়েছে। যেগুলি চুন-সুড়কির গাঁথনি দিয়ে নির্মিত। সেই রকমই একটি বাড়িতে পুনঃনির্মানের কাজ চলছিল সেই কাজ করতে গিয়েই এতবড় দুর্ঘটনা ঘটেছে। জখম সকলের অবস্থা স্থিতিশীল বলে খবর পেয়েছি।”

---- -----