হকার সমস্যা মেটাতে নৈহাটিতে নতুন হকার্স মার্কেট

বারাকপুর: নৈহাটি স্টেশন থেকে বেরিয়ে অরবিন্দ রোড ধরে ফেরিঘাট৷ পথ খুব বেশি নয়৷ কিন্তু রাস্তার দু’ধারে দোকান৷ আর তার সামনে ফুটপাত দখল করে হকারদের ভিড়৷ যেটুকু রাস্তা পাওয়া যায় তার মধ্যে টোটো, রিকশা, সাইকেল, মোটর বাইক, ভ্যান, চার চাকার গাড়ি সবকিছুরই অবাধ যাতায়াত৷ সেসব পাশ কাটিয়ে পথচারিদের একেবারে নাজেহাল দশা৷

তবে এবার পথচারিদের একটু হলেও স্বস্তি মিলবে৷ কেন না উত্তর ২৪ পরগনার নৈহাটি শহরে সমাধান হতে চলেছে হকার সমস্যার৷ পুরসভার উদ্যোগে তৈরি হচ্ছে হকারদের জন্য হকার্স মার্কেট৷ নৈহাটি অরবিন্দ রোডে হকার্স মার্কেট তৈরির সিংহভাগ কাজই সম্পূর্ণ৷ এই নতুন হকার্স মার্কেটে পুর্নবাসন পাবেন নৈহাটি অরবিন্দ রোডে দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার ধারে ফুটপাতে ব্যবসা করা ১৮২জন হকার, ব্যবসায়ী৷

- Advertisement -

নৈহাটি স্টেশন থেকে নৈহাটি ফেরিঘাট যাওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা হল অরবিন্দ রোড৷ কিন্তু রাস্তার দু’ ধারে অসংখ্য হকাররা দোকান নিয়ে বসায় রাস্তার আয়তন অনেকটাই কমে গিয়েছে৷ তার উপর গাড়ির দৌড়৷ স্বভাবতই অরবিন্দ রোডে যাতায়াতকারী নিত্যযাত্রীদের চলাফেরায় সমস্যা হয়৷

কিন্তু সাধারণ মানুষের কথা ভাবার পাশাপাশি স্থানীয় হকারদের দিকটিও বিবেচনা করতেই হত পুরসভাকে৷ সবদিক বজায় রেখেই হকার্স মার্কেট তৈরির সিদ্ধান্ত নৈহাটি পুরসভার তৃণমূল বোর্ডের৷ বাম আমল থেকেই এ সমস্যায় জর্জরিত নৈহাটির মানুষ৷ সমাধান তো হয়ইনি, উল্টে তা যেন ক্রমবর্ধমান৷

নৈহাটি শহরকে পরিষ্কার ও সুন্দর করে সাজিয়ে তুলতে নৈহাটি পুরসভা এই অরবিন্দ রোডেই তাদের একটি সরকারি জমিতে হকার্স মার্কেট নির্মান করার উদ্যোগ নেয়৷ এই নতুন মার্কেট কমপ্লেক্স তৈরি করার জন্য পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের থেকে প্রথম দফায় ৫ কোটি টাকা লোন হিসাবে নেওয়া হয়৷ সেই টাকার কাজ ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে৷

তবে তাতে সম্পূর্ণ কাজ শেষ না হওয়ায় আরও ৯ কোটি টাকা পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরের কাছে অনুদান চাওয়া হয়েছে নৈহাটি পুরসভার পক্ষ থেকে৷ পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম নৈহাটি পুরসভাকে সেই টাকা দেওয়ার আশ্বাসও দিয়েছেন৷

মোট ১৪ কোটি টাকা খরচ করে তৈরি করা হচ্ছে নতুন হকার্স মার্কেট কমপ্লেক্স৷ সেখানে নৈহাটি অরবিন্দ রোডের ১৮২জন হকারই পুনর্বাসন পাবেন৷ নৈহাটি পুরসভার পুরপ্রধান অশোক চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘‘এই হকার্স মার্কেট তৈরি হলে নৈহাটি শহরে হকার সমস্যার সমাধান হবে৷ তাছাড়া নৈহাটি রেল স্টেশনের সঙ্গে সংযোগকারী গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা অরবিন্দ রোডের সম্প্রসারণও হবে৷ এই রাস্তাই নৈহাটি ফেরিঘাট অবধি যায়৷’’

অশোক চট্টোপাধ্যায়ের কথায়, ‘‘হকারদের পুনর্বাসন দিয়ে রাস্তা বাড়ানোয় কারও কোনও সমস্যাও হবে না৷ আবার যাত্রীস্বচ্ছন্দ্যও বহাল থাকবে৷ বাম আমল থেকে চলা হকার সমস্যার সমাধান করতে চলেছি আমরা৷’’ পুনর্বাসন যারা পাবেন তাঁরাও খুশি পুরসভার এই সিদ্ধান্তে৷ তাঁদের বক্তব্য, এটা আমাদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল৷ বর্তমান পুরবোর্ড আমাদের দাবি মেনে নিয়েছে৷ আমরাও সরকারের এই সিদ্ধান্তে খুশি৷ আমাদেরও একটা স্থায়ী ঠিকানা হবে, এর থেকে ভালো আর কী হতে পারে৷

Advertisement ---
---
-----