ফাইল ছবি

নয়াদিল্লি: বন্যায় বানভাসী কেরল৷ বাড়ছে মৃতের সংখ্যা৷ পরিস্থিতি উন্নতির কোনও খবর নেই৷ উলটে প্রশাসনের কর্তাদের রাতের ঘুম ছুটিয়ে দিয়েছে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর(এনডিএমএ) পূর্বাভাস৷ মৌসম ভবনের পূর্বাভাসকে উদ্ধৃত করে এনডিএমএ জানিয়েছে, আগামী দু’দিন ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত হবে কেরলে৷

শুধু কেরল নয়, বৃষ্টিতে বানভাসি হতে পারে প্রায় গোটা দেশ৷ নয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, কেরল, উত্তরাখণ্ড, পশ্চিমবঙ্গ সহ ১৬টি রাজ্যে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত হবে৷ উপকূলীয় এলাকাগুলিতে বৃষ্টিপাতের প্রকোপ থাকবে সবথেকে বেশি৷ তাই মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে৷ কেননা উত্তাল থাকবে সমু্দ্র৷ রবি ও সোমবার এই দু’দিন উত্তরাখণ্ডের বেশ কিছু এলাকায় ভারী বৃষ্টিপাত হবে৷ তাই সেই সব এলাকায় লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে৷

মৌসম ভবনের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, উত্তরাখণ্ড, কেরল, পশ্চিমবঙ্গ ছাড়া সিকিম, হিমাচল প্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, ছত্তিশগড়, বিহার, ঝাড়খন্ড, ওড়িশা, অরুণাচল প্রদেশ, অসম, মেঘালয়, অন্ধ্রপ্রদেশ, তামিলনাড়ুতে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত হবে৷

এরই মধ্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে, বৃষ্টি বন্যায় প্রাণ গিয়েছে ৭১৮ জনের৷ দেশের সাতটি রাজ্য বন্যায় ভাসছে৷ এই বাদল মরসুমে সাতটি রাজ্য জুড়ে বন্যা ও বৃষ্টিতে এতগুলো মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক৷

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের ন্যাশনাল ইমারজেন্সি রেসপন্স সেন্টার বা এনইআরসি জানাচ্ছে কেরলে মৃত্যুর হার সবথেকে বেশি৷ ১৭৮ জন মারা গিয়েছেন সেরাজ্যে৷ ১৭১ জন মারা গিয়েছেন উত্তরপ্রদেশে৷ তার পরেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ৷ সেখানে মারা গিয়েছেন ১৭০ জন৷ মহারাষ্ট্রে মারা গিয়েছেন ১৩৯ জন৷ গুজরাটে মৃতের সংখ্যা ৫২৷ অসমে ৪৪ ও নাগাল্যান্ডে মৃতের সংখ্যা ৮৷

----
--