নতুন করে প্রশিক্ষণ দিতে হবে রাজ্য পুলিশকে: হাইকোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: যে কোন ঘটনার কিভাবে সঠিক পথে তদন্ত করতে হবে, তার জন্য পুলিশ প্রশাসন কে একটি নির্দিষ্ট গাইডলাইন তৈরী করতে হবে৷ এমনই নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্ট৷

৮ ই মার্চ ২০১৬ সালের ঘটনা৷ বন্ধু আকাশ আসফার সাথে মোটর সাইকেল চেপে বেলঘরিয়া থেকে ডানলপের দিকে আসছিল বছর বাইশের মধুপর্ণা ভট্টাচার্য্য৷ এই সময় বিটি রোডে দুর্ঘটনায় পড়ে আকাশের বাইকটি৷ বাইক থেকে পড়ে যায় মধুপর্ণা৷

সেদিন কলেজে ভরতির জন্য বাড়ি থেকে বেড়িয়ে ছিল সে। পুলিশ মধুপর্ণার বাড়িতে খবর পাঠায়৷ জানানো হয় তাঁদের মেয়েকে সাগর দত্ত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷ যদিও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরে মধুপর্ণাকে চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষনা করেন।

- Advertisement -

এর পর এই ঘটনায় পুলিশ সঠিক তদন্ত না করেনি, এই অভিযোগে মধুপর্ণার পরিবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়৷ ১৩ ই এপ্রিল ২০১৭ সালে হাইকোর্টের বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী নির্দেশ দিয়েছিলেন ঘটনার সঠিক তদন্ত করার। পরবর্তী সময়ে পুলিশ রিপোর্ট জমা দিয়ে জানায় এই দুর্ঘনায় একজন ট্যাক্সি ড্রাইভারের বিরুদ্ধে এফআইআর করে তদন্ত করা হচ্ছে৷

মামলাকারীর আইনজীবী জয়ন্ত নারায়ন চট্টোপাধ্যায় এবং আইনজীবী দেবাশীষ বন্দ্যোপাধ্যায় আদালতে জানিয়ে ছিলেন মোটর সাইকেল আরোহীর শরীরে সে রকম কোন আঘাত ছিল না৷ যদি দুর্ঘটনা ঘটেই থাকে তা হলে গুরুতর আঘাত লাগার কথা৷

এর পর বিচারপতি জয়মাল্য বাগচী ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটকে নির্দেশ দেন একটি স্পেশাল তদন্ত কমিটি গড়ে তদন্ত পক্রিয়া শিরি করে রিপোর্ট জমা দেওয়ার। শুক্রবার বিচারপতি রাজ শেখর মন্থার এজলাসে রিপোর্ট জমা পড়ে । সেই রিপোর্ট দেখে রাজ্য সরকারের আইনজীবীকে তীব্র ভর্ৎসনা করেন বিচারপতি৷ তিনি বলেন পুলিশ যদি তদন্তে গাফিলতি করেন তাহলে সাধারন মানুষ সুবিচার কি ভাবে পাবেন।

অবিলম্বে অভিযুক্ত তদন্তকারী পুলিশ আধিকারিকদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দেন। এবং মামলাকারীকে নিম্ন আদালতে ঘটনার পুনরায় তদন্তের আবেদন জানানোর নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট৷

Advertisement
---